প্রা’ণঘাতী করো’না প্রাদুর্ভাবের মধ্যে হঠাৎ করে একটি জরুরি নির্দেশনা জারি করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।জরুরি নির্দেশনায় বলা হয়, স্কুলগুলোতে চলমান কাব স্কাউটিং কার্যক্রম মনিটরিং করতে হবে জে’লা ও উপজে’লা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মক’র্তাদের।

স্কুল পরিদর্শনে সময়ে কার্যক্রম আবশ্যিকভাবে মনিটরিং করতে হবে৷ আর কাব-স্কাউটং কার্যক্রমের ত’থ্য পরিদর্শন প্রতিবেদনে উল্লেখ করে নি’য়মিতভাবে অধিদপ্তরে পাঠাতে হবে।বুধবার (২৪ জুন) মাঠ পর্যায়ের কর্মক’র্তাদের এসব নির্দেশনা দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

সভায় বিভাগীয় উপ-পরিচালক জে’লা শিক্ষা কর্মক’র্তা এবং উপজে’লা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মক’র্তাদের কাব স্কাউটিং কার্যক্রম মনিটরিং করার নির্দেশনা দিতে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও জাতীয় উপ-কমিশনার ফসিউল্লাহকে অনুরোধ করা হয়েছিল।

এক মাসেই রিজার্ভে দুই রেকর্ড
ক’রোনাভা’ইরাসে (কোভিড-১৯) সং’কটের মধ্যেও ভালো রেমিট্যান্স এবং বিদেশি সংস্থার ঋ’ণের কারণে বাড়ছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ। দেশের ইতিহাসে বুধবার (২৪ জুন) প্রথমবারের মতো রিজার্ভ ৩৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। এ নিয়ে এক মাসের মধ্যেই দুই রেকর্ড হলো রিজার্ভে।এর আগে গত ৩ জুন প্রথমবারের মতো রিজার্ভ ৩৪ বিলিয়ন ডলারের ঘর অতিক্রম করে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ত’থ্য অনুযায়ী, গত মে মাস পর্যন্ত প্রবাসীরা মোট ১ হাজার ৬৩৬ কোটি ডলার দেশে পাঠিয়েছেন। আগের বছরের একই সময় পর্যন্ত এসেছিল এক হাজার ৫০৫ কোটি ডলার।

এ হিসেবে মে পর্যন্ত রেমিট্যান্স বেশি আছে ১৩১ কোটি ৩০ লাখ ডলার বা ৮ দশমিক ৭২ শতাংশ। গত মার্চ থেকে মে পর্যন্ত টানা তিন মাস রেমিট্যান্স কমার পরও এ হারে প্রবৃ’দ্ধি আছে। ক’রোনাভা’ইরাসেের প্রভাব শুরুর আগে গত ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অবশ্য রেমিট্যান্সে প্রবৃ’দ্ধি ছিল ২০ দশমিক ২০ শতাংশ। রেমিট্যান্সে প্রবৃ’দ্ধি থাকলেও রপ্তানির পাশাপাশি আম’দানি দায় পরিশোধও একেবারে কমেছে। যে কারণে রিজার্ভ বাড়ছে।

চলতি অর্থবছরের মে পর্যন্ত রপ্তানি আয় দেশে এসেছে তিন হাজার ৯৬ কোটি ডলারের। আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় যা প্রায় ১৮ শতাংশ কম। এর মধ্যে মে মাসে রপ্তানি কমেছে ৬১ দশমিক ৫৭ শতাংশ। আর গত এপ্রিলে কমেছিল ৮৩ শতাংশ। গত এপ্রিল পর্যন্ত আম’দানি হয়েছে ৪ হাজার ৬৪৪ কোটি ডলারের পণ্য। আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় যা ৮ দশমিক ৭৭ শতাংশ কম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here