নয়া দিল্লীঃ ভারতে (India) টিকটক (TikTok) সমেত ৫৯ টি চীনের অ্যাপ (China App) নি’ষিদ্ধ করার পর চীনের (China) তরফ থেকে প্রথম প্রতিক্রিয়া সামনে এলো।

নি’ষেধাজ্ঞার কারণে কাঙ্ক্ষিত, চীন এখন আন্তর্জাতিক আইনের কথা মনে করাচ্ছে। চীনের বিদেশ মন্ত্রালয়ের মুখপাত্র (Chinese Foreign Ministry spokesperson) ঝায়ো লিজিয়ান (Zhao Lijian) বলেন, আমরা এই বি’ষয়ে চিন্তিত আর পরিস্থিতি খতিয়ে দেখছি।

মুখপাত্র বলেন, আমরা সবসময় এই বি’ষয়ে জো’র দিই যে, চীনের স’রকার সর্বদা চীনের ব্যবসাকে আন্তর্জাতিক এবং স্থানীয় আইন মেনেই চালাক। উনি বলেন, ভারত স’রকারের উপর চীনের বিনিয়োগ সমেত আন্তর্জাতিক বিনিয়োগের আইন আর অধিকার গুলোকে বজায় রাখার দায়িত্ব আছে।

আপনাদের জানিয়ে দিই, সোমবার ভারত স’রকার চীনকে বড়সড় ঝটকা দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাপ টিকটক সমেত চীনের ৫৯ টি অ্যাপের উপর নি’ষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

স’রকারের তরফ থেকে জারি নির্দেশ অনুযায়ী, স’রকার সেই সমস্ত মোবাইল অ্যাপ গুলোর উপরে নি’ষেধাজ্ঞা জারি করেছে, যেগুলো ভারতের সার্বভৌম ক্ষ’মতা, ভারতের সুরক্ষা, রাজ্যের সুরক্ষা আর সার্বজনীন ব্যবস্থার জন্য বি’পদজনক।

ত’থ্য প্রযুক্তি মন্ত্রককে বিভিন্ন দিক থেকে এই অ্যাপ গুলোকে নিয়ে অনেক অভিযোগ পাঠানো হয়েছিল। সেখানে অনেক কয়েকটি মোবাইল অ্যাপের অ’পব্যবহারে নিয়েও বলা হয়েছিল। ওই অ্যাপ গুলো আইফোন আর অ্যান্ড্রয়েড দুই প্ল্যাটফর্মেই ব্যবহারকারীদের ত’থ্য চু’রি করছিল।

AIUDF-এর বিধায়ক আমিনুল ইসলামের বাবার শেষকৃত্যে জড় হল হাজার হাজার মানুষ! ঘুম উড়ল প্রশাসনের

নওগাঁঃ গোটা দেশেই ক’রোনার কারণে সামাজিক দূরত্বের নিয়ম পালন করা হচ্ছে। আর কারোর শেষ কৃত্যে ২০ জনের বেশি অংশ নেওয়ায় নি’ষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। কিন্তু অসমের (Assam) নওগাঁ জে’লায় সামাজিক দূরত্বের সমস্ত বিঁধি নি’ষেধ অমান্য করার একটি ভিডিও (Video) সোশ্যাল মিডিয়ায় (Social Media) ভাইরাল (Viral) হচ্ছে। এক মৌলানাকে শেষ বিদায় জানানোর জন্য কমপক্ষে ১০ হাজার মানুষ একত্রিত হয়। পরে প্রশাসন বা’ধ্য হয়ে একসাথে তিনটি গ্রামকে সিল করে দেয়। এছাড়াও এই ঘ’টনায় অনেক জনের বি’রুদ্ধে মা’মলা দা’য়ের করা হয়েছে।

একটি ইংরেজি সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট (AIUDF) এর বিধায়ক আমিনুল ইসলামের বাবা খাইরুল ইসলাম ২রা জুলাই মা’রা যান।

৮৭ বছর ব’য়সী খাইরুল ইসলাম অল ইন্ডিয়া জামাত উলেমা আর আমির-এ-শরিয়তের সহ সভাপতি ছিলেন। উনি নিজের এলাকায় বিখ্যাত ব্যাক্তি হিসেবে পরিচিত ছিলেন। আর এই কারণে ওনার জানাজায় হাজার হাজার মানুষ একত্রিত হয়। প্রশাসন অনুযায়ী, ওই জানাজায় কমপক্ষে ১০ হাজার জন একত্রিত হয়েছিল।

নওগাঁ এর জে’লা প্রশাসক যাদব সৈকিয়া বলেন, আমরা এই ঘ’টনায় এখনো পর্যন্ত দুজনকে গ্রে’ফতার করেছি। একজনের বি’রুদ্ধে পু’লিশ মা’মলা দা’য়ের করেছেন, আরেকজনের বি’রুদ্ধে ম্যা’জিস্ট্রেট মা’মলা দা’য়ের করেছেন।

সৈকিয়া বলেন, ক’রোনা ভাই’রাসের সং’ক্র’মণ রোখার জন্য আশেপাশের তিনটি গ্রামে লকডাউন করে দেওয়া হয়েছে। উনি বলেন, জানাজায় উপস্থিত কেউই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখেনি আর না কেউ মাস্ক পরেছিল।

আরেকদিকে AIUDF এর বিধায়ক আমিনুল ইসলাম বলেন, আমার বাবা খুব জনপ্রিয় মানুষ ছিলেন। আর ওনাকে অনেক মানুষই ভালবাসতেন। উনি বলেন, ‘আমরা মৃ’ত্যু আর শেষকৃত্যের বি’ষয়ে প্রশাসনকে জানিয়েছিলাম।

পু’লিশ সবাইকে ওখানে না যাওয়ার জন্য নি’ষেধও করেছিল। অনেক গাড়িকে সেখান থেকে ফিরে যেতে বলা হয়েছিল, তবুও সেখানে হাজার হাজার মানুষ জড় হয়ে যায়।” আমাদের পক্ষে এই ভিডিওর সত্যতা যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

আপনাদের জানিয়ে দিই, এই বছরের এপ্রিল মাসেই আমিনুল ইসলামের একটি অডিও ক্লিপ ভাইরাল হয়েছিল। যেখানে উনি সা’ম্প্রদায়িকতা ছড়ানোর জন্য মানুষকে উসকানি দিচ্ছিলেন। এরপর ওনার বি’রুদ্ধে দেশদ্রোহ এর মা’মলা অনুযায়ী গ্রে’ফতার করা হয়। আপাতত তিনি জা’মিনে মুক্ত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here