শেরপুর পৌরসভার পরিত্যক্ত একটি পুরনো ভবনে এক কিশোর গ্যাংয়ের চার সদস্য মিলে এক হাফেজকে অমানবিক নি’র্যাতন করেছে।

গেলো সোমবার দুপুরের ওই ঘ’টনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

প্রায় ৪৭ মিনিট ধরে নি’র্যাতনের শি’কার ওই হাফেজের নাম আশিকুর রহমান পাপ্পু (১৫)। পাপ্পু সদর উপজে’লার ভাতশালা ইউনিয়নের কানাশাখোলার বলবাড়ী এলাকার মোহাম্ম’দ আলীর ছেলে।

এ ঘ’টনায় মা’মলা হয়েছে। ঘ’টনার দিন রাতেই পু’লিশ অ’ভিযান চা’লিয়ে চারজনকে গ্রে’প্তার করেছে।

এই কিশোর গ্যাংয়ের অ’পকর্ম ও দু’র্বল মা’মলার ধারা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন শেরপুর জজ আ’দালতের পিপি চন্দন কুমার পাল এবং না’রী ও শি’শু নি’র্যাতন দ’মন আ’দালতের পিপি গোলাম কিবরিয়া বুলু।

জানা গেছে, শহরের গৃর্দা নারায়ণপুরে অবস্থিত শের আলী গাজী। এর পেছনে বসবাসকারী এক মে’য়েকে ভালোবাসে ওই হাফেজ পাপ্পুর বন্ধু শুভ। পাপ্পু মে’য়েটির মোবাইলে খুদে বার্তা (এসএমএস) পাঠায়।

বি’ষয়টি প্রে’মিক শুভ জানতে পেরে পাপ্পুর ও’পর ক্ষি’প্ত হয়। প্রে’মিকার কাছে হিরো সাজতে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের নিয়ে পাপ্পুকে বেদম প্রহার করে শুভ। পরে এ ঘ’টনার ভিডিও প্রে’মিকার কাছে পাঠিয়ে দেয় সে।

এদিকে আ’সামিদের জা’মিন হওয়ার পর থেকেই তুমুল প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে মানুষের মধ্যে। বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া চলছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

এ বি’ষয়ে বিশিষ্ট নাগরিক রাজনীতিক কৃষিবিদ বদিউজ্জামান বাদশা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা বিস্মিত হয়েছি। যদি আইনের ফাঁক গলে এভাবে ক্ষমা পেয়ে যায় তবে অ’পরাধীদের অভ’য়ারণ্যে পরিণত হবে সমাজ।’

পিপি অ্যাডভোকেট চন্দন কুমার পাল ও অ্যাডভোকেট গোলাম কিবরিয়া বুলুু বলেন, ওই ভিডিও এবং হাসপাতালে ভর্তি-সংক্রান্ত কাগজ বা’দীপক্ষ সরবরাহ করেনি। মা’মলার দু’র্বল ধারা ও আ’সামিদের ব’য়স কম বিবেচনায় আ’দালত জা’মিন দিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here