সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃ’ত্যুর ঘ’টনায় অবশেষে রিয়াসহ আরো ছয় জনের বি’রুদ্ধে এফআইআর দা’য়ের করল সিবিআই। সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, এই মা’মলায় রিয়া চ’ক্রবর্তী,

তার বাবা ইন্দ্রজিত চ’ক্রবর্তী, মা সন্ধ্যা চ’ক্রবর্তী, ভাই শৌমিক, রিয়ার ম্যানেজার শ্রুতি মোদী, সুশান্তের হাউস ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডসহ আরো একজনের বি’রুদ্ধে এফআইআর দা’য়ের করা হয়েছে।

শুধু এফআইআর দা’য়েরই নয়, সুশান্ত মা’মলায় বিশেষ ত’দন্তকারী দল গঠন করেছে সিবিআই। জানা যাচ্ছে, এই টিমে রয়েছে মনোজ শশীধর আইপিএস অফিসার গগনদীপ গম্ভীরের নেতৃত্বে গঠিত হয়েছে এই ত’দন্তকারী দল।

বিহার পু’লিশের থেকে ইতোমধ্যেই সমস্ত ত’থ্য সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে জানতে চাওয়া হয়েছে। পরবর্তী ত’দন্তেও প্রয়োজনে বিহার পু’লিশের স’ঙ্গে যোগাযোগ রাখা হবে।

কী হয়েছিল ৮ জুন? ওই দিনই সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার দিশা সালিয়ান আ’ত্মহ’ত্যা করেন। ওই একই দিনে সুশান্তের ফ্ল্যাট ছেড়ে নিজের বাড়িতে ওঠেন রিয়া। দিশাকে নিয়েই কি সুশান্তের স’ঙ্গে ঝামেলা হয়েছিল রিয়ার? এ নিয়ে বাড়ছে ধোঁয়াশা।

জানা যায়, এ বছরের ২০ থেকে ২৪ জানুয়ারি, এই ক’দিনে সুশান্তকে প্রায় ২৫ বার ফোন করেছিলেন রিয়া। এই সময়েই বোনের কাছে চণ্ডীগড়ে গিয়েছিলেন সুশান্ত। এর আগে সুশান্তের পরিবার দাবি করেছিল, গত বছরের নভেম্বরে সুশান্ত তার বোনের বাড়িতে যেতে চাইলেও যেতে দেননি রিয়া।

সুশান্তের মৃ’ত্যুর ঘ’টনায় সিবিআই ত’দন্ত চেয়ে বিহার স’রকার যে সুপারিশ করেছিল কেন্দ্র তা মেনে নেওয়ায় কাজ শুরু করেছে ওই ত’দন্তকারী সংস্থা (সিবিআই)। এই মা’মলায় তিন পক্ষ, অর্থাৎ মুম্বাই পু’লিশ, বিহার পু’লিশ এবং সুশান্তের পরিবারকে তিন দিনের মধ্যে তাদের মতামত জানাতে বলেছে শীর্ষ আ’দালত।

একই স’ঙ্গে সুশান্তের মত্যুর ত’দন্তে মুম্বাইয়ে যাওয়া পটনার আইপিএস অফিসার বিনয় তিওয়ারিকে এখনও কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ বহাল রাখার জন্য বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন (বিএমসি)-কে একহাত নিয়েছেন বিহার পু’লিশের ডিজি গু”প্ত েশ্বর পাণ্ডে।

তার কথায়, ‘একজন অনডিউটি অফিসারকে হোম কোয়ারেন্টিন করে রাখা আইনত অ’পরাধ। শীর্ষ আ’দালতও একে অ’পেশাদার বলেছেন। আমর’া আজকের দিনটা দেখব। কোনও ব্যবস্থা না হলে আইনের সাহায্য নেব। ’

সুশান্তের বাবার করা এজাহারে রিয়ার বিরু’দ্ধে সুশান্তের অ্যাকাউন্ট থেকে ১৫ কোটি টাকা হাতানোর অ’ভিযোগ থাকায় রিয়াকে শুক্রবার (৭ আগস্ট) ডেকে পাঠিয়েছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)।

শুধু ১৫ কোটি নয়, ইডি সূত্রে জানা যাচ্ছে, রিয়ার নামে মুম্বাইয়ের অ’ভিজাত এলাকায় দুটো ফ্ল্যাট আছে। প্রশ্ন উঠেছে, ২০১৮-’১৯-এ ১৪ লাখ টাকা উপার্জন করা রিয়া মুম্বাইয়ের অ’ভিজাত এলাকার দুটো ফ্ল্যাটের মালিক কী করে হলেন? তার ত’দন্ত করবে ইডি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here