নরসিংদী জে’লা যুব ম’হিলা লীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক এবং প্র’তারণার দায়ে কা’রাগারে থাকা শামীমা নূর পাপিয়ার মতো এবার বাংলাদেশ আওয়ামী ম’হিলা লীগে আরেকজনের সন্ধান পাওয়া গেছে। তিনি হচ্ছেন বাংলাদেশ আওয়ামী ম’হিলা লীগের ঢাকা জে’লা ইউনিটের এক নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক মরিয়ম জালাল ওরফে মরিয়ম মোস্তফা শিমু।

ঢাকার অদূরে নাবাবগঞ্জ উপজে’লার সাবেক এই ভাইস চেয়ারম্যান নানা কারণে বি’তর্কি’ত। একাধারে টাকার বিনিময়ে পদ পেতে জো’র লবিং, মা’দক ব্যবসা, নিজে মা’দক গ্রহণ এমনকি একাধিক অ’নৈতিক সম্প’র্কের কারণে তাকে নিয়ে বিব্রতকর অবস্থায় পরেছে বাংলাদেশ আওয়ামী ম’হিলা লীগের নেতাকর্মীরা।

ইতিমধ্যেই মরিয়ম জালালের ইয়াবা সেবনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পরেছে। এমনকি একাধিক পুরু’ষের সাথে অ’নৈতিক সম্প’র্ক রাখতে গিয়ে তার বিভিন্ন স্ক্রিনশট এবং স্বা’মী ছাড়া অন্য পুরু’ষের সাথে অন্তরঙ্গ ছবিও বেরিয়ে এসেছে।

ম’হিলা লীগের নেতাকর্মীরা তার ব’হিষ্কারও দাবি করছেন। এই মরিয়ম জালালের সাথে পাপিয়ার অনেকাংশেই মিল খুঁজে পেয়েছেন বলে তারা দাবি করেছেন। ম’হিলা আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্র ভোরের পাতাকে নিশ্চিত করেছে, ঢাকা জে’লা ইউনিটের আহ্বায়ক হওয়ার জন্য মরিয়ম জালাল সংগঠনের কেন্দ্রীয় এক শীর্ষ নেত্রীকে ৫ লাখ টাকা দিয়েছিলেন। কিন্তু তাকে সেই পদ দেয়া হয়নি। এ নিয়ে মরিয়মের সাথে শীর্ষ নেত্রীর কথা কা’টাকাটিও হয়েছে।

মরিয়ম জালাল নবাবগঞ্জ উপজে’লার ভাইস চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে তার তদবিরের লোককে উপজে’লায় কেন চাকরি দেয়া হয় নাই, এ কারণে উপজে’লা নির্বাহী কর্মকতাকে মা’রধর করেছিলেন।

নিজের ক্যাডার বাহিনী নিয়ে নিয়ে উপজে’লা নির্বাহী কর্মকর্তার ও’পর হা’মলা করে। তখন স্থানীয় স’রকার মন্ত্রনালয় থেকে ভাইস চেয়ারম্যান পদ থেকে তাকে ব’হিষ্কার করা হয়। এমনকি স’রকারি কর্মকর্তার গাঁয়ে হাত তোলার কারণে মা’মলাও হয়েছিল।

এরপর উপজে’লা নির্বাচনেও ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে লড়াই করেন মরিয়ম। কিন্তু তিনি বিএনপির প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন। মরিয়মের একের পর এক অ’নৈতিক সম্প’র্ক ও মা’দক ব্যবসার কারণে ম’হিলা দলের নেতাকর্মীরা বিব্রত। যখন সারা দেশে করোনার মধ্যেও দলের ভাবমূর্তি নিয়ে কথা হচ্ছে তখন এমন কর্মকান্ড আরেক পাপিয়ার কারণে বিব্রত সবাই।

এসব অ’ভিযোগের বি’ষয়ে মরিয়ম জালাল ভোরের পাতার এ প্রতিবেদককে টেলিফোনে বলেন, সবগুলো অ’ভিযোগই মি’থ্যা, বানোয়াট এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। আমাকে এবং আমার পরিবারকে রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতেই একটি গোষ্ঠী এমন অ’পপ্রচার চালাচ্ছে। এরপর অফিস থেকে নম্বর জোগাড় করে এ প্রতিবেদককে বিকাল ৫ টা ৫৯ মিনিটে ফোন করেন মরিয়ম নিজেই।

তিনি তার স্বা’মী উপজে’লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলে পরিচয় দেন এবং ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচনে মাত্র ২ হাজার ভোটের ব্যবধানে হেরে যান বলে জানান। এমনকি তিনি আরো বলেন, এলাকায় রাজনৈতিক গ্রুপিংয়ের কারণে তার বি’রুদ্ধে এমন অ’পপ্রচার চা’লানো হচ্ছে।

মরিয়ম জালালের বি’ষয়ে কেন্দ্রীয় ম’হিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম ক্রিককে এ প্রতিবেদক রোববার বিকাল ৫ টা ৪৩ মিনিটে ফোন করেন। এরপর তিনি ফোন রিসিভ করলেও রাষ্ট্রীয় একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকায় কোনো কথা বলতে পারেননি। এরপর প্রতিবেদকে একটি ক্ষুদেবার্তা দেন। তারপর মরিয়ম জালালের অ’নৈতিক কর্মকাণ্ড নিয়ে মন্তব্য জানার জন্য প্রতিবেদকও একটি ক্ষুদেবার্তা পাঠালে তিনি জবাবে শুধু ‘মানে?’ লিখে পাঠান।

এরপর তিনি সন্ধ্যা ৬ টা ৩ মিনিটে এ প্রতিবেদককে কল ব্যাক করে বলেন, তার মতো মে’য়ের কাছ থেকে টাকা নেয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না। এমন কোনো অ’ভিযোগ আমার বি’রুদ্ধে আগেও কেউ করতে পারেনি। সংগঠনে কিছু খা’রাপ মে’য়ে আছে, যারা এসব মি’থ্যা ও বানোয়ার ত’থ্য ছড়াচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি।

এরপর তিনি মরিয়ম জালালের ভাইরাল হওয়া ছবিগুলো এ প্রতিবেদকের কাছে চান হোয়াটসআপ মেসেজের মাধ্যমে। এরপর আবারো ফোন ব্যাক করে মাহম’দা ক্রিক মরিয়ম জালালের বি’রুদ্ধে ত’দন্ত শুরু করেছেন বলে জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here