সাদেক বাচ্চু আ’ঙ্কেল এই সেপ্টেম্বরের ৪ তারিখে আমাকে ফোন দিয়েছিলেন। তখন আমি বাইরে, আমি বললাম আ’ঙ্কেল আমি তো বাইরে। বাসায় গিয়ে ফোন দিচ্ছি। সেদিন বাসায় ফিরতে অনেক রাত হয়ে গেছে।

আর তার পরের দিনও ফোন দেওয়া হলো না। পরে আমি যখন ফোন দিলাম, তখন তিনি হাসপাতালে। ফোন কেউ ধরলো না। উনি আমাকে শেষ কী বলতে চেয়েছিল আমি জানি না। এখন আফসোস লাগছে, জানি এই আফসোসটা চিরদিন থেকে যাব’ে।

সদ্যপ্রয়া’ত সাদেক বাচ্চু সম্প’র্কে বলতে গিয়ে এভাবেই জাতীয় এক দৈনিককে বাষ্পরু’দ্ধ কণ্ঠে বলছিলেন চিত্রনায়িকা আইরিন। আইরিন বলেন, ‘অবশ্য সাম্প্রতিক সময়ে সাদেক বাচ্চু আ’ঙ্কেলের স’ঙ্গে অনেক কথা ‘হতো।

গত বছরে নভেম্বরে মুক্তি পায় পদ্মা’র প্রেম। এটা জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের জন্য জমা দেওয়া হয়। এই চলচ্চিত্রের বিভিন্ন বি’ষয় নিয়ে কথা ‘হতো।

এরপর পদ্মা’র প্রেমসহ আরও দু’টি চলচ্চিত্রে অ’ভিনয় করেছেন আইরিন। যার প্রত্যেকটি ছবিতেই বাবার চরিত্রে অ’ভিনয় করেছেন এই অ’ভিনেতা।

আইরিন বলেন, ‘তিনি বাবার চরিত্রে অ’ভিনয় করেছেন আমা’র প্রত্যেক ছবিতেই। আমাকে একদম মে’য়ের মতো দেখতেন। বাবার মতোই স্নেহপূর্ণ কথা বলতেন। তিনি শুধু অ’ভিনেতাই ঞ্জন, একজন শিক্ষক।

আমর’া যারা অ’ভিনয় না শিখেই এই জগতে চলে আসি, তাদের তিনি হাতে কলমে অ’ভিনয় শিখিয়ে দিতেন। কোনোভাবেই, কখনই বির’ক্ত ‘হতেন না। এই স্কুলিংটা আমর’া আর কারো কাছ থেকে সেভাবে পাবো না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here