ক’রোনাভা’ইরাসে মোকাবেলায় বাংলাদেশকে ভেন্টিলেটরসহ আরও চিকিৎসা সামগ্রী দেয়ার আশ্বাস দিয়েছে তুরস্ক। এছাড়াও তুরস্ক ও বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃ’দ্ধির অ’ঙ্গীকার পূণর্ব্যক্ত করেছেন তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভাসুগলো।

তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় গতকাল পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেনের সাথে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠককালে এ অ’ঙ্গীকার পূণর্ব্যক্ত করা হয়।

পররাষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয়ের সিনিয়র ত’থ্য অফিসার মো: তৌহিদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এসব ত’থ্য জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, তুরস্কের পক্ষ থেকে বাংলাদেশকে আরো ভেন্টিলেটর ও মাস্কসহ ক’রোনা চিকিৎসা সামগ্রী প্রদানের আ’গ্রহ প্রকাশ করেন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন। দ্রু’ততম সময়ের মধ্যে উভ’য় দেশের মধ্যে পরবর্তী FOC ( Foreign Office Consultation) ও JEC (Joint Economic Commission) এর বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন দু’দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

বৈঠককালে বাংলাদেশে অবস্থানরত মিয়ানমারের রো’হিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে সে দেশে প্রত্যাবর্তনে তুরস্ক সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে বলে উল্লেখ করেন মেভলুত চাভাসুগলো।

অত্যন্ত আন্তরিক ও ফলপ্রসু এ আলোচনায় ডি-৮ এর কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করার বি’ষয়ে উভ’য় দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী একমত পোষন করেন।

উভ’য় দেশের পক্ষ থেকে ফিলিস্তিনের অধিকারের বি’ষয়ে একাত্মতা প্রকাশ করা হয়। এসময় ফিলিস্তিনের ন্যায়স’ঙ্গত অধিকারের পক্ষে বাংলাদেশের দৃঢ় অবস্থানের বি’ষয়টি ড. মোমেন তুলে ধরেন।

ড. মোমেনের ৪ দিনের সফরে বর্তমানে তুরস্কে অবস্থান করছেন। গত ১৩ সেপ্টেম্বর তিনি তুরস্কের ইস্তাম্বুলে পৌঁছালে ইস্তাম্বুলের ডেপুটি গভর্নর ইসমাইল সানলি তাকে স্বাগত জানান।

সোমবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সৌজন্যে তুরস্কের রাজধানী অঙ্কারায় সেদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মধ্যাহ্ন ভোজের আয়োজন করেন। এছাড়া উভ’য় দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতা করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here