বর্তমান অবস্থার প্রেক্ষাপটে ‘গণতান্ত্রিক আন্দোলন ছাড়া কেউই রক্ষা পাবে না’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাস’চিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার দুপুরে এক ভার্চুয়াল আলোচনায় তিনি এই মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, এই ভার্চুয়াল আলোচনার মধ্য দিয়ে এই ম্যাসেজটা সকলকে আপনারা (সাংবাদিকরা) দিতে পারেন যে, এখন থেকে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন ছাড়া দেশকে, গণতন্ত্রকে, সাংবাদিকতাকে-কাউকেকেই রক্ষা করা যাবে না,

দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকেও রক্ষা করা যাবে না। আমি একটা কথাই বলব, অবস্থা বদলে দেওয়া ছাড়া কোনো উপায় নেই। বদলে দেয়ার একটাই পথ যে, আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে এই ভ’য়াবহ ফ্যাসিস্ট যে স’রকার, এই স’রকারকে সরাতে হবে। গণতান্ত্রিক আন্দোলনই হচ্ছে আমাদের একমাত্র পথ।”

আমরা ১৯৭১ সালে যেটার জন্য যু’দ্ধ করেছিলাম একটা গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের জন্য, গণতান্ত্রিক সমাজের জন্য সেটাকে ফিরিয়ে আনার জন্য লড়াই করি সামনের দিকে এগিয়ে যেতে।”

তিনি বলেন, এই স’রকারের কোনোরকমের মূ’ল্য বোধ নেই। আওয়ামী লীগ তো গণতন্ত্রই বিশ্বাসই করে না। আওয়ামী লীগ ও গণতন্ত্র একসাথে যায় না, কখনোই যায় না।

ওদের যে রসায়ন তার মধ্যে গণতন্ত্র হয় না। ওদের ভাবটাই হচ্ছে যে, আমি ছাড়া আর কেউ নেই। আমি একমাত্র দেশকে নি’য়ন্ত্রণ করবো, আমি দেশ চালাবো, আমি সব কিছু।

সেজন্য এই অবস্থা থেকে মুক্ত হতে হলে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, পারস্পরিক স’মস্যাগুলোকে দূর করতে হবে। ন্যাশনাল ইউনিটি এই গণতন্ত্রের জন্য বেশি প্রয়োজন।”

গণমাধ্যমের ও’পর স’রকারের নি’পীড়ন-নি’র্যাতনের প্রস’ঙ্গ টেনে বিএনপি মহাস’চিব বলেন, আজকে যে অবস্থায় পড়েছি এটা নিঃস’ন্দে’হে সবচেয়ে খা’রাপ সময়, সবচেয়ে কঠিন সময়ে।

এখানে এমন একটা অবস্থা তৈরি করে ফেলা হয়েছে বিশেষ করে ভ’য়-ভীতি ও ত্রাস সৃষ্টি করে যে আজকে কেউ সাহস করছে না। আজকে আমার মনে হয় যে, যত সাংবাদিক এখন বেকার আছেন,

এতো বেকার বোধহয় কখনো ছিল না। পঁচাত্তর সালে বাকশাল করার পর ৪টি পত্রিকা রেখেছিল, বাকিগুলো চলে গিয়েছিল। আজকে কিন্তু পরোক্ষভাবে ওইরকমই একটা অবস্থা তৈরি হয়েছে।

তাদের কথা যারা বলবে, তাদের পক্ষে যারা থাকবে তাদের পত্রিকা চলবে, তাদের চ্যানেল চলবে, তাদের গণমাধ্যমগুলো চলবে। অন্য যারা আছে তাদেরগুলো তারা চলতে দেবে না।”

‘মুক্ত সাংবাদিক অন্তর্ধান’ দিবস উপলক্ষে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের উদ্যোগে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলামের সঞ্চালনায় ভার্চুয়াল এই আলোচনায় জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া মো. গোলাম পারোয়ার, বিএফইউজের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, বিএফইউজের মহাস’চিব এম আবদুল্লাহ,

সাবেক মহাস’চিব এম এ আজিজ, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী, ডিইউজের বাকের হোসাইন,

আবদুল আউয়াল ঠাকুর, নুরুল আমিন রোকন, বাছির জামাল, রাশেদুল হক, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোরসালীন নোমানী, ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি একেএম মহসিন বক্তব্য রাখেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here