ঘনিয়ে আসছে বি’পদ। আগামীদিনে পৃথিবীর জন্য ভ’য়’ঙ্কর বি’পদ আসছে। গ্রিনল্যান্ড ও আন্টার্কটিকার বরফ অত্যন্ত দ্রু’ত হারে গলছে। মা’র্কিন মহাকাশ গবে’ষণা সংস্থা নাসা জানিয়েছে,

এরকম ভাবে চলতে থাকলে ২১০০ সালের মধ্যেই সমুদ্রের জলস্তর উঠে আসতে পারে ৩৮ সেন্টিমিটার বা ১.২৫ ফুট। এর আগেও ‘ইন্টার-গভর্নমেন্টাল প্যানেল অন ক্লাইমেট চেঞ্জ ২০১৯’-এর স্পেশ্যাল রিপোর্টে এই বি’ষয়ে দাবি করা হয়েছিল।

গবে’ষণা থেকে জানা যাচ্ছে, সমুদ্রের জলস্তর বৃ’দ্ধির মোট পরিমানের এক-তৃতীয়াংশ বরফ গলে যাব’ার জন্যই হচ্ছে। আইপিসিসি-র রিপোর্ট অনুযায়ী, কেবলমাত্র গ্রিনল্যান্ডের বরফ গ’লার জন্য ২১০০-র মধ্যে সমুদ্রের জলস্তর ৮ থেকে ২৭ সেন্টিমিটার বাড়বে।

আর আন্টার্কটিকার বরফ গ’লার জন্য জলস্তর বাড়তে পারে ৩ থেকে ২৮ সেন্টিমিটার। তাঁদের মতে, বাতাসের তাপমাত্রা বাড়ার জন্যই মেরু অঞ্চলের বরফ গলছে। এছাড়া সমুদ্রের তাপমাত্রাও দ্রু’ত বাড়ছে, ফলে সমুদ্র সংল’গ্ন হিমবাহগু’লি গলছে।

মধ্যবিত্তের মুখে ফুটল হাসি, হু হু করে কমছে সোনার দাম

চলতি বছর সোনার দামে দেখা দিয়েছে এক অদ্ভুত পরিবর্তন। কখনও ক্রেতাদের চিন্তা বাড়িয়ে বেড়ে যাচ্ছে সোনার দাম আবার কখনও ক্রেতাদের মুখে হাসি ফুঁটিয়ে কমে যাচ্ছে সোনার দাম। সামনেই পুজো বর্তমানে সোনা প্রেমীরা খোঁজ করছে সোনার। আর এবার ক্রেতাদের আ’নন্দ দিয়ে সোমবার ফের কমলো সোনার দাম।

বেশ কিছুদিন ধরে ঊর্ধ্বমুখী ছিল সোনার দাম। সোনার অতিরিক্ত দামে কিভাবে সোনা কেনা সম্ভব তা নিয়ে কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়ে ছিল ক্রেতাদের। যদিও সে চিন্তার অবসান ঘটিয়ে কমলো সোনার দাম।

তবে, গত শুক্রবার থেকে সোনায় বিনিয়োগের চা’হিদা বাড়তে দেখা গিয়েছিল। বিশ্বের বৃ’হত্তম গোল্ড ব্যাকড এক্সচেঞ্জ বা গোল্ড ইটিএফ এসপিডিআর গোল্ড ট্রাস্ট-এ মজুত সোনার পরিমান ১.০৩% বৃ’দ্ধির ফলে ওই দিন পৌঁছায় ১,২৫৯.৮৪ টনে।

কোটাক সিকিওরিটিস-র তরফে বলা হয়েছে, ‘আমেরিকান ডলারের দাম ও শেয়ারবাজারের অস্থিরতার কারণে আপাতত সোনার বাজারে ওঠানামা বহাল থাকবে’।

আসুন এবার দেখে নেওয়া যাক ঠিক কতটা কমলো সোনার দাম। ভারতে সোমবার এমসিএক্স সূচকে ০.১৫% পতনের জেরে প্রতি ১০ গ্রাম সোনার দাম যাচ্ছে ৫১,৬৩৭ টাকা। যদিও গত শুক্রবারের শেষে এই দাম ০.৫২% বৃ’দ্ধি পেয়েছিল।

অন্যদিকে স্পট গোল্ড সূচকে এ দিন ০.৩% বৃ’দ্ধির ফলে প্রতি আউন্স সোনার দাম যাচ্ছে ১,৯৫৪.৬৫ ডলার। পাশাপাশি, সূচকে ০.৬% বৃ’দ্ধির ফলে রুপোর দাম প্রতি আউন্স যাচ্ছে ২৬.৯২ ডলার।

অন্যদিকে কমলো রূপের দামও। সূচকে ০.১৩% পতনের জেরে প্রতি কেজি রুপোর দাম যাচ্ছে ৬৭,৭৯০ টাকা। গত দিন সূচকে রুপোর দাম নেমেছিল ০.২%। পুজো’র আগে সোনা রুপোর দাম কমায় বলা যেতেই পারে এটা পুজো’র বোনাস ক্রেতাদের জন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here