বাগেরহাট পু’লিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)-এর হেফাজতে রাজা ফকির (২০) নামের এক আ’সামির মৃ’ত্যু হয়েছে। নি’হতের পরিবারের অ’ভিযোগ, তাকে পি’টিয়ে হ’ত্যা করা হয়েছে।

তবে পিবিআই পু’লিশের একটি সূত্রের দাবি, শা’রীরিক অ’সুস্থতার কারণে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে মা’রা যান হ’ত্যা মা’মলার ওই আ’সামি।

নি’হত রাজা ফকির বাগেরহাট সদর উপজে’লার খানজাহান আলী দীঘিরপাড় এলাকার বাবু ফকিরের ছেলে।

রাজা ফকিকের মৃ’ত্যুর খবর পেয়ে গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় তার বাবা ও স্বজনরা হাসপাতালে ছুটে আসেন। এসময় রাজা ফকিরের বাবা বাবু ফকির সাংবাদিকদের বলেন,

বাগেরহাটের সিভিল সার্জন কে এম হুমায়ুন কবির বলেন, ‘বাগেরহাট পিবিআই পু’লিশের সদস্যরা দুপুর ১টা ২০ মিনিটে রাজা ফকির নামের এক যুবককে হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেন রাজা ফকির মৃ’ত। ম’য়নাত’দন্তের পর মৃ’ত্যুর কারণ জানা যাবে।’

২০১৯ সালের ১৮ অক্টোবর সন্ধ্যায় বাগেরহাট সদর উপজে’লার খানজাহান আলী মাজার মোড় এলাকায় ছু’রিকাঘাতে তালিম মল্লিক (১৮) নামের এক যুবক নি’হত হন।

পরে একই এলাকার জাহাঙ্গীরের ছেলে মি’লন ও রাজা ফকিরকে আ’সামি করে বাগেরহাট সদর থানায় মা’মলা দা’য়ের করেন তালিমের পরিবার। ওই মা’মলায় পিবিআই সদস্যরা রাজা ফকিরকে গ্রে’প্তার করেন।

পিবিআই বাগেরহাটের দায়িত্বপ্রা’প্ত পু’লিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘তালি, হ’ত্যা মা’মলায় রাজা ফকিরকে গ্রে’প্তার করা হয়। তিনি নে’শাগ্রস্ত এবং আগে থেকে অ’সুস্থ ছিলেন।

তাকে জি’জ্ঞাসাবাদের সময় আরো অ’সুস্থ হয়ে পড়লে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই তার মৃ’ত্যু হয়। পরিবারের অ’ভিযোগ সঠিক নয়।’

ম’য়নাত’দন্তের জন্য ম’রদে’হ বাগেরহাট সদর হাসপাতাল ম’র্গে হয়েছে বলে জানান পু’লিশ সুপার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here