সারাদেশঃ চট্টগ্রামের পটিয়া উপজে’লায় স্বামীকে বেঁ’ধে রেখে নববধূকে গণধ’র্ষ’ণ মা’মলার প্রধান আ’সামি মো. হান্নানকে (৩২) গ্রে’প্তার করেছে র‌্যা’পিড অ্যা’কশন ব্যা’টালিয়ন (র‍্যা’ব)।

আজ রোববার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে র‍্যা’ব এই তথ্য জানায়। তারা বলছে, আজ নগরের কর্ণফুলী থানার কলেজ বাজার এলাকা থেকে এই আ’সামিকে গ্রে’প্তার করা হয়।

র‍্যা’ব-৭ চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক (গণমাধ্যম) মো. মাশকুর রহমান গণমাধ্যমকে বি’ষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গো’পন তথ্যের ভিত্তিতে হান্নানকে গ্রে’প্তার করেন তারা। গ্রে’প্তারের পর প্রাথমিক জি’জ্ঞাসাবাদে হান্নান ধ’র্ষ’ণের ঘটনায় জ’ড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন।

মো. জুয়েল ও আবু তাহেরকে আ’সামি করা হয়। পরে মা’মলাটির ছায়া ত’দন্ত শুরু করে র‍্যা’ব। হান্নানসহ এজাহারে নাম থাকা চার আ’সামিকেই র‍্যা’ব গ্রে’প্তার করেছে।

রাজধানীতে বিয়ের প্রলোভনে বাসায় ডেকে ৭ দিন ধরে তরুণীকে ধ’র্ষ’ণ

সারাদেশঃ রাজধানীর সবুজবাগে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক তরুণীকে বাসায় ডেকে নিয়ে সাতদিন ধরে ধ’র্ষ’ণের অ’ভিযোগে থানায় মা’মলা হয়েছে।

এরপরই অ’ভিযান চা’লিয়ে সবুজ মিয়া (৩২) ও তার সহযোগী আব্দুস সামাদ (৩৫) নামের দুই আ’সামিকে গ্রে’প্তার করেছে পুলিশ।

আজ রোববার দুপুর ১২টার দিকে শা’রীরিক পরীক্ষার জন্য ওই তরুণীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সবুজবাগ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রিয়াজ উদ্দিন স’রকার বি’ষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত ৬ মাস আগে ওই তরুণীর সঙ্গে ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় হয় সবুজ মিয়ার। এরপর তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

গত ৪ অক্টোবর সবুজ বিয়ের জন্য পূর্ব বাসাবোতে নিজের বাসায় ডেকে নেন ওই তরুণীকে। কিন্তু বিয়ে না করে ১০ অক্টোবর পর্যন্ত সবুজ ওই তরুণীকে ধ’র্ষ’ণ করেন।

পরে উপায় না দেখে গতকাল শনিবার রাতে সবুজ মিয়া ও তার সহযোগী সামাদের নামে মা’মলা করেন ওই তরুণী।

এরপর রাতেই আ’সামিদের গ্রে’প্তার করা হয়। ধ’র্ষ’ণের শি’কার ওই তরুণী বর্তমানে হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি আছেন বলেও জানান সবুজবাগ থানার উপ-পরিদর্শক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here