রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে প্রভাবশালী দুই আওয়ামী লীগ নেতার বি’রুদ্ধে আ’গ্নেয়াস্ত্র ঠেকিয়ে ব্যবসায়ীর কাছ থেকে চাঁ’দাবাজির অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় ব্যবসায়ী শরিফুল ইসলাম বা’দী হয়ে রোববার রাতে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় ওই দুই নেতাসহ ৬ জনের নাম উল্লেখ ও অ’জ্ঞাত ৫-৬ জনের বি’রুদ্ধে মা’মলা দা’য়ের করেছেন।

অ’ভিযুক্ত দুই নেতা হলেন- গোয়ালন্দ পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নজরুল ইসলাম মণ্ডল (৪২) এবং উপজে’লা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী মোল্লা (৪৫)।

মা’মলার অপর আ’সামিরা হলেন- নজরুল ইসলাম মণ্ডলের মামাতো ভাই মাসুদ মোল্লা (২৫), কাশেম আলী খাঁ (৩৫), নজরুলের ছোট ভাই মোস্তফা মণ্ডল (৩৬) এবং ভাতিজা শাওন মণ্ডল (২৮)।

এ লক্ষ্যে এক মাস আগে সেখানে কাজ শুরু করলে অ’ভিযুক্তরা তার কাছে এক লাখ টাকা চাঁ’দা দাবি করেন।

এক মাসের মধ্যে নির্ধারিত চাঁ’দা পরিশোধ না করলে প্রা’ণনা’শের হু’মকি ও ব্যবসা করতে দেয়া হবে না বলে তাকে শাসায়।

তিনি বলেন, গত ৩১ অক্টোবর বেলা ১১টার দিকে বলগেট থেকে বালু নামানোর সময় আ’সামিরা আ’গ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অ’স্ত্রশস্ত্র নিয়ে চাঁ’দার দাবিতে এক শ্র’মিককে মা’রধর করে।

বি’ষয়টি জানতে পেরে আমি আমার মামা ছবদুলকে নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে আসি। এ সময় উল্লেখিত আ’সামিরা আমাকে বলেন-

‘এক মাসের মধ্যে চাঁ’দার টাকা পরিশোধ করার কথা ছিল, তা না দিয়ে কাজ করছিস কেন।’

শরিফুল ইসলাম বলেন, আমি চাঁ’দা দিতে অস্বীকার করলে নজরুল ইসলাম মণ্ডল ও মোহাম্মদ আলী মোল্লা তাদের কাছে থাকা পি’স্তল আমার মাথায় ও বুকে ঠেকিয়ে আমার পকে’টে থাকা ১০ হাজার

টাকা ছি’নিয়ে নেয় এবং অবশিষ্ট ৯০ হাজার টাকা সাত দিনের মধ্যে পরিশোধ করতে বলেন। এ সময় আমাকে ও মামাকে মা’রপিট করে চলে যায়।

জানা যায়, গোয়ালন্দ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) নজরুল ইসলাম মণ্ডল দেবগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আবু হ’ত্যা মা’মলার প্রধান আ’সামি।

চাঁ’দাবাজিসহ বিভিন্ন অ’ভিযোগে তাকে ইতোপূর্বে গোয়ালন্দ উপজে’লা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে ব’হিষ্কার করে কেন্দ্রীয় যুবলীগ।

এ প্রসঙ্গে কথা বলতে নজরুল মণ্ডলের মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে মোহাম্মদ আলী ফোন রিসিভ করে দাবি করেন,

আমাদের বি’রুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ইন্ধনে মি’থ্যা ও ষ’ড়যন্ত্রমূলক চাঁ’দাবাজির মা’মলা দা’য়ের করা হয়েছে। বা’দীকে আমরা চিনিও না। তারা প’লাতক নন বলেও দাবি করেন।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আবদুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, এ ঘটনায় মা’মলা দা’য়েরের পর আ’সামিদের গ্রে’ফতারে পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় অ’ভিযান চালাচ্ছে।

কিন্তু তারা মা’মলার পর আত্মগো’পনে রয়েছে। আশা করি দ্রুত সময়ের মধ্যে আ’সামিদের গ্রে’ফতার করে আইনের আওতায় আনা যাবে।

সূত্রঃ যুগান্তর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here