বগুড়ার শি’বগঞ্জে বিয়ের দাবীতে এক সন্তানের জননী জেসমিন আক্তার ভাগ্নের বাড়িতে অনশন করছে। শুক্রবার (২ অক্টোবর) সন্ধ্যা থেকে ভাগ্নে সাব্বির এর বাড়িতে

অনশন শুরু করেন তিনি।জানা যায়, শি’বগঞ্জ পৌর এলাকার ৯নং ওয়ার্ডের লালদহ নয়াপাড়া গ্রামের মফিদুলের স্ত্রী’ জেসমিন একই গ্রামের সাদ্দামের ছে’লে

ভাগ্নে সাব্বির (২৩) এর সঙ্গে পর’কিয়া প্রে’মের স’ম্পর্ক গড়ে ওঠে। মামী ও ভাগ্নে বিভিন্ন সময় পাত্রী দেখার নাম করে বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে শারীরিক স’ম্পর্ক করে।

প্রে’মের টানে মামীকে নিয়ে ভাগ্নে সাব্বির গত ২৮ সেপ্টেম্বর সোমবার রাত ৯টায় ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। এরপর ঢাকায় একটি হোটেলে স্বামী-স্ত্রী’

এবং তাদের বাবা দুজন দুজনার জিম্মায় নিয়ে যায়। মে’য়ের স্বামী মফিদুল তার স্ত্রী’কে নিয়ে ঘর সংসার করবে না বলে জানিয়ে দেয়।

পরবর্তীতে মামী জেসমিনকে সাব্বির মুঠোফোনে বলে, আমি তোমাকে নিয়ে ঘর সংসার বাঁধবো তুমি আমা’র বাড়ীতে এসো। এর প্রেক্ষিতে মামী জেসমিন শুক্রবার (২ অক্টোবর)

সন্ধ্যায় সাব্বিরের বাড়িতে চলে আসে।এ বিষয়ে জেসমিন জানান, আমি সাব্বিরকে ছাড়া বাঁচবো না তার সঙ্গে আমা’র বিয়ে না হলে আমি আত্মহ’ত্যার পথ বেঁচে নিবো।

আমি ঢাকায় যাওয়ার সময় সাব্বিরকে ১ ভরী স্বর্ণালংকার ও নগদ ৮০ হাজার টাকা দিয়েছি।লালদহ গ্রামের ইলিয়াছ বলেন, মামী জেসমিন এর সাথে ভাগিনা সাব্বিরের বিবাহের প্রস্তুতি চলছে।

কাউন্সিলর আবু সাঈদ বলেন, এ বিষয়ে একটি বৈঠক হয়েছে। তবে মে’য়ের পরিবার মে’য়েকে তাদের জিম্মায় চাওয়ায় আমি নিয়ে যেতে বলেছি।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক এলাকাবাসী বলেন, স্বামী মফিদুল ট্রাক ড্রাইভা’র হওয়ার কারণে বাড়িতে না থাকার সুযোগে ভাগ্নে ও তার মামীর মধ্যে অ’বৈধ স’ম্পর্ক গড়ে ওঠে।

ইতিপূর্বে একদিন অসামাজিক কার্যকলাপ করার সময় ধ’রাও খেয়েছিল। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামী-ভাগ্নের বিয়ের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা যায়।

কর্মস্থল থেকে ফেরার পথে অ’ন্তঃসত্ত্বা নার্সকে নির্জন জঙ্গলে নিয়ে যায় ৪ যুবক

সারাদেশঃ কুমিল্লায় কর্মস্থল থেকে বাসায় ফেরার পথে অ’ন্তঃসত্ত্বা নার্সকে গণধ”ণের চেষ্টা করার অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে ওই নার্স মাথায় আ’ঘাত পেয়েছেন।

এ ঘটনায় রিয়াদ (২২) নামের একজনকে আ’টক করেছে পুলিশ। কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজে’লার কালির বাজার ইউনিয়নের মোস্তফাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ওইদিন রাত ১১টার দিকে নি’র্যাতিত ওই নার্সকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে এ ঘটনায় জ’ড়িত অপর এক যুবক প’লাতক রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্র জানায়, কালির বাজার এলাকার একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নার্স হিসেবে কাজ করেন ওই নারী। বুধবার সন্ধ্যার পর কর্মস্থল থেকে

বাড়িতে ফেরার পথে মোস্তফাপুর এলাকায় তাকে রাস্তা থেকে তুলে পার্শ্ববর্তী নির্জন জঙ্গলে নিয়ে যায় চারজন যুবক।এ সময় ওই যুবকরা তাকে ধ”ণের চেষ্টা করে।

ধ’স্তাধ’স্তি ও তাদের হাতে থাকা টর্চলাইটের আ’ঘাতে আ’হত হন তিনি। এক পর্যায়ে দৌঁড়ে পা’লিয়ে আসেন ওই নার্স।

এ ঘটনার খবর পেয়ে কুমিল্লা কোতয়ালী থানা ও নাজিরা বাজার পুলিশ ফাঁ’ড়ির সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। পরে তারা এ ঘটনায় অ’ভিযুক্ত একজনকে আ’টক করেন।

ওই নার্সের মামা জানান, প্রতিদিনের মতো বুধবার রাতে কর্মস্থল থেকে বাড়িতে ফেরার পথে সড়কের পাশের মাচায় বসে থাকা স্থানীয় ওই ব’খাটেরা তার ভাগ্নির পথরোধ করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here