রাস্তায় দাঁড়িয়ে টক ঝাল ফুচকা খাওয়ার আনন্দের বারোটা বেজে গেল। মহারাষ্ট্রের কোলহাপুরে জনৈক ফুচকা বিক্রেতা যে কাণ্ড ঘটিয়েছে, তাতে ঘেন্নায় শিউরে উঠতে হয়।

ক্যামেরায় ধ’রা পড়েছে, ফুচকায় নিজের প্রস্রাব মিশিয়ে বিক্রি করেছে সে।কোলহাপুরের রাঙ্কালা লেকের ধারে নিয়মিত দেখা যেত ওই ফুচকাওয়ালাকে। তার ঠেলাগাড়ির নাম মুম্বই

কে স্পেশাল পানিপুরী ওয়ালা। তার ফুচকা কোলহাপুরে অত্যন্ত জনপ্রিয়, ছেলেমেয়েরা ভিড় করে ফুচকা খেত তার কাছে। এমনকী লাইনও লেগে যেত।

কিন্তু এত জনপ্রিয় ফুচকাওয়ালার কেলেঙ্কারি দেখে স্তম্ভিত কোলহাপুরের মানুষ। ভিডিওয় পরিষ্কার দেখা গিয়েছে, ফুচকার তেঁতুল জলে প্রস্রাব মিশিয়ে বিক্রি করেছে সে।

মেশাতে গিয়ে এক ফুচকাওয়ালা ধ’রা পড়ে। মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা তখন ৩০০-র বেশি ফুচকা স্টল ভেঙে দেয়, আন্দোলনেও নামে।

মায়ের সংসার ভাঙার গুঞ্জনে শ্রাবন্তীর ছেলে ঝিনুকের র’হস্য!

বিনোদনঃ কয়েক মাস আগে কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চ্যাটার্জি ও রোশান দাম্পত্য জীবনের এক বছর পূর্ণ করেন। ভালোই চলছিল এ জুটির জীবন। হঠাৎ তাদের এ সংসারে

ভাঙনের সুর বাজছে! দুর্গাপূজার আগে থেকে আলাদা থাকছেন তারা। বেশ সুখেই ছিলেন শ্রাবন্তী৷ হঠাৎ কি হলো যে স্বামী রোশান সিংয়ের থেকে দূরে সরে যাচ্ছেন তিনি

এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজছে সবাই। এমনি সময় নিজের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে বড় ঘোষণার ইঙ্গিত দিয়ে র’হস্য জমিয়ে দিলো শ্রাবন্তীপুত্র ঝিনুক ওরফে অভিমন্যু চট্টোপাধ্যায়।

শুক্রবার (৭ নভেম্বর) ইনস্টাগ্রাম পোস্টটি করে অভিমন্যু। নিজের ও মায়ের একটি পুরনো ছবি শেয়ার করেছে। পাশাপাশি শেয়ার করেছে একটি ভিডিও।

যাতে সংগীতের ব্যবহারও করা হয়েছে। নিজের পোস্টের ক্যাপশনেই অভিমন্যু লিখেছে, ‘বড় কিছু আসছে।’এর আগে পরিচালক রাজীব বিশ্বাসের সঙ্গে বিয়ে করেন শ্রাবন্তী।

রাজীব ও শ্রাবন্তীর এক ছেলেও রয়েছে। সেই সম্পর্কও বেশিদিন টেকেনি। তারপর মডেল কৃষ্ণবিরাজের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান শ্রাবন্তী। বিয়েও করেন। সে সম্পর্কও এক বছর ঘুরতে না

ঘুরতে ভে’ঙে যায়। কৃষ্ণবিরাজকে ডিভোর্স দেন। এরপর ২০১৯ সালের ১৯ এপ্রিল চণ্ডীগড়ের একটি গুরুদ্বারে গিয়ে রোশনের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁ’ধেছিলেন শ্রাবন্তী।

তারপর থেকেই সোশাল মিডিয়ায় স্বামীর সঙ্গে নানা ভালবাসার মুহূর্ত শেয়ার করেছিলেন। এমনকী, শ্রাবন্তী সঞ্চালিত রিয়ালিটি শো ‘সুপারস্টার পরিবার’- এও রোশন ও তার

পরিবারকে দেখা গিয়েছিল। স্বামীকে নিয়ে ঘুরতে এসেছিলেন বাংলাদেশেও।তার কোনো প্রমাণই এখন আর শ্রাবন্তী কিংবা রোশনের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে নেই।

এমন অবস্থাতেই ঝিনুকের এই পোস্ট কৌতুহল বাড়াল। আদৌ কি শ্রাবন্তী-রোশনের সম্পর্ক ভাঙতে চলেছে? নাকি এই সাসপেন্স নতুন কোনো ঘোষণার আগে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করার হাতিয়ার মাত্র।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here