আগামী বছরের ২০ জানুয়ারি শপথ নিয়ে জরুরি ভিত্তিতে একাধিক নির্বাহী আদেশ জারির পরিকল্পনা করছেন যুক্তরাষ্ট্রের সদ্য নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ২০২০ সালের নির্বাচনে

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে হারিয়ে নির্বাচিত হন তিনি। পুরনো প্রশাসনের নেয়া অনেক নীতিতেও আসবে আমূল পরিবর্তন। বাইডেন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুকে আগ্রাধিকার দিয়ে তার হোয়াইট হাউসের যাত্রা শুরুর পরিকল্পনা করছেন।

বাইডেনের প্রচারণা শিবির এবং গেল কয়েক মাসের নির্বাচনী সভায় বাইডেন জানিয়েছেন, তিনি প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রকে ফেরাবেন। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থায়ও ওয়াশিংটনকে যুক্ত করবেন।

মুসলিম অধ্যুষিত দেশগুলোর আরোপ করা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করবেন বাইডেন। ড্রিমার্স প্রকল্প পুনস্থাপন করবেন তিনি। যে প্রকল্পের মাধ্যমে ছোট বেলায় কাগজপত্র ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া অবৈধ শিশুরা দেশটিতে থাকার সুযোগ পেয়ে আসছিল।

মার্কিন কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলোতে বাইডেনের শীর্ষ উপদেষ্টার নেতৃত্বে কয়েকশ’ ট্রানজিশনাল কর্মকর্তা কাজ করছেন। কীভাবে গুরুত্বপূর্ণ এজেন্ডাগুলো সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা যায়

তা নিয়ে গেলো কয়েক মাস ধরে কাজ করছেন তারা। বাইডেনের নির্বাচনী ইশতিহারেও সে পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়েছে। যেগুলো ক্ষমতা গ্রহণের পর দ্রুত পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সহায়ক হবে।

সোমবার করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় টাস্কফোর্স গঠনের ঘোষণা দিয়েছেন বাইডেন। করোনা ভাইরাস মোকাবিলাকে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হিসেবে চিহ্নিত করেছেন তিনি।

কয়েকদিনের মধ্যেই টাস্কফোর্সের বৈঠক হতে যাচ্ছে। মার্কিন ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রাশসন কমিশনের সাবেক জেনারেল সার্জন বিবেক মুর্তি এবং ডেভিড কেসেলার যৌথভাবে সভাপতিত্ব করবেন।

বেশ কয়েকটি কেন্দ্রীয় সংস্থা পুনর্গঠন এবং নতুন কিছু নিয়মনীতি প্রবর্তন করতে চাচ্ছেন বাইডেন। তার ঘনিষ্ঠরা বলছেন, এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়নে নির্বাহী

আদেশ জারি করাকে বেছে নেবেন বাইডেন। বিশ্বমঞ্চে বাইডেন একটি ভিন্ন মাত্রা প্রতিষ্ঠা করতে পারেন বলেও প্রত্যাশা তাদের।

ট্রাম্পকে ছুড়ে ফেলেছে জনগণ: হিলারি

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের জয়ের পর ডোনাল্ট ট্রাম্পকে তুলোধুনো করেছেন হিলারি ক্লিনটন। ডোনাল্ট ট্রাম্পের পরাজয়কে জনগণের প্রত্যাখ্যান বলে অভিহিতি করেছেন হিলারি। তিনি বলেন, এই ভোটের মাধ্যমে ট্রাম্পকে ছুড়ে ফেলে দিয়েছে জনগণ।

হিলারি বলেন, ট্রাম্পের অপশাসনের বিরুদ্ধে জনগণ কথা বলেছে। ভোটের মাধ্যমে তারা এর জবাব দিয়েছে।

আমেরিকার জনগণ নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করায় তাদের ধন্যবাদ দিয়ে টুইট করেন হিলারি। টুইট তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যেক নাগরিককে ধন্যবাদ যারা এই ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন।

২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এই ট্রাম্পের কাছেই হেরে যান হিলারি। পপুলার ভোট বেশি পেলেও ইলেক্টোরাল ভোটে হেরে গিয়েছিলেন হিলারি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here