নারীকে বিবস্ত্রের ঘটনায় নতুন মোড়, চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁস – CityHourNewsনারীকে বিবস্ত্রের ঘটনায় নতুন মোড়, চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁসনারীকে বিবস্ত্রের ঘটনায় নতুন মোড়,

চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁসছেলেদের যেসব কথায় বিবাহিত মহিলারা সহজে দুর্বল হয়ে যায় – CityHourNewsছেলেদের যেসব কথায় বিবাহিত মহিলারা সহজে দুর্বল হয়ে

যায়ছেলেদের যেসব কথায় বিবাহিত মহিলারা সহজে দুর্বল হয়ে যায়মেয়ের শিক্ষকের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে সব হারালেন প্রবাসীর স্ত্রী – CityHourNewsমেয়ের শিক্ষকের সঙ্গে

পরকীয়ায় জড়িয়ে সব হারালেন প্রবাসীর স্ত্রীমেয়ের শিক্ষকের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে সব হারালেন প্রবাসীর স্ত্রী
ঝিনাইদহের শৈলকুপায় ই’সলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি)

সাদামাটা তিন্নির জীবন-যাপন ছিল সহজ সরল। প্রতিবেশীরা জানান, খুবই মেধাবী শিক্ষার্থী ছিলেন তিন্নি।খুবই হাসিখুশি ও সাদামাটা জীবন-যাপন ছিলো তার।

এ ঘ’টনার সঙ্গে যারা জ’ড়িত তাদের দ্রুত গ্রে’ফতার ক’রে সর্বোচ্চ শা’স্তির আওয়তায় নেয়ার দা’বি তাদের। গত ১ অক্টোবর রাতে বড় বোন মিন্নির সাবেক স্বামী

একই গ্রামের কনুরুদ্দীনের ছেলে জামিরুল তিন্নিদের বাড়িতে দুই দফা হা’মলা-ভা’ঙচুর ক’রে।এসময় তিন্নির ওপর পাশবিক নি’র্যাতন চালানো হয়।

পরে রাত ১২টার দিকে শোয়ার ঘর থেকে সিলিং ফ্যানে ঝু’লন্ত অবস্থায় তিন্নির ম’রদেহ উ’দ্ধার ক’রা হয়। ওই রাতে তিন্নির সঙ্গে যা ঘ’টে, তা উঠে এসেছে তার মা ও বোনের কথায়।

শনিবার সেসব কথা জানান তারা। ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজে’লার শেখপাড়া গ্রামের মু’ক্তিযো’দ্ধা মৃ’ত ইউসুফ আলীর মেয়ে তিন্নি ই’সলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব

বিজ্ঞান বিভাগের ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের ছা’ত্রী ছিলেন।নি’হত তিন্নির পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তিন্নিরা তিন বোন। তার বাবা মৃ’ত ইউসুফ মু’ক্তিযো’দ্ধা ও সাবেক সে’না

কর্মক’র্তা ছিলেন। ঝিনাইদহ জে’লার শৈলকূপা উপজে’লার শৈলকূপা থা’নাধীন যোগীপাড়া গ্রামের তাদের স্থায়ী নিবাস। তবে মাসহ তারা দুই বোন থাকতেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী

শেখপাড়া বাজার সংলগ্ন নিজস্ব দোতলা বাসায়।বড় বোনের আগেই বিয়ে হয়ে গেছে। তিন বোনের মধ্যে তিন্নি ছিলেন ছোট। মেঝ বোনের বিয়ে হয়েছিল তাদের এক কাজিন জামিরুলের সঙ্গে।

তবে বিভিন্ন কারণে সে বিয়ে টে’কেনি। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে শৈলকুপার শেখপাড়া গ্রামে নিজের ঘর থেকেই তিন্নির ম’রদে’হ উ’দ্ধার হয়।

মা হালিমা বেগম বলেন, ‘বৃহম্পতিবার তিন্নি এক বান্ধবীর বিয়ের অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া গিয়েছিল। অনুষ্ঠান শে’ষে বাড়ি ফেরে রাত ৮টার দিকে। এর কিছু সময়

পর মেজো মেয়ে মিন্নির তালাকপ্রাপ্ত স্বামী জামিরুল গো’পনে তিন্নির রুমে ঢোকে এবং খাটের নিচে লু’কিয়ে থাকে।তিন্নি বাইরে থেকে এসে পোশাক বদল ক’রে

বাসার নিচ তলায় তার সঙ্গে (মা হালিমার সঙ্গে) দেখা ক’রে, একটু বসে। এরপর ঘুমাতে তার রুমে যায়।’ তিন্নির মা ঘ’টনার বর্ণনা দিয়ে আরো বলেন, ‘এরপর তিন্নি

বুঝতে পারে তার খাটের নিচে কেউ লু’কিয়ে আছে। লোকটি খাটের নিচ থেকে বের হয়ে এক পর্যায়ে তিন্নিকে জা’পটে ধ’রে। শুরু হয় ধ’স্তাধ’স্তি, এসময় চিৎ’কার দেয় তিন্নি। লোকটি ছিল জামিরুল।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here