কলকাতার রানাঘাটের স্টেশনের ভিক্ষুক থেকে মুম্বাইয়ের রেকর্ডিং স্টুডিওতে জায়গা করে নিয়েছিলেন তিনি। সোশ্যাল মিডিয়ার বদৌলতে রাতারাতি সেলিব্রেটি হয়েছিলেন।

তার নাম ছড়িয়ে পড়েছিল ভা’রতের সবখানে। বাংলাদেশেও তাকে নিয়ে আগ্রহ ছিল দারুণ।কিন্তু অহঙ্কার আর বাজে ব্যবহারের জন্য সেই রানু মণ্ডলের পতন হতে সময় লাগেনি।

মাত্র এক বছরের ব্যবধানে যে স্টেশন থেকে উঠে এসেছিলেন আবার সেই ভা’রতের পশ্চিমবঙ্গের রানাঘাট স্টেশনেই জায়গা হলো তার।

আবারও সেই আগের মতো হাত পেতে ভিক্ষা করেই জীবন চালাতে হচ্ছে তাকে। সম্প্রতি এমন খবরই প্রকাশ করেছে ভা’রতীয় গণমাধ্যম ‘এই সময়’।

মন্তব্য করে সমালোচিত হয়েছেন তিনি। সেই সব ঘটনার ছবি-ভিডিও ভাই’রাল হয়েছে বারবার, যা ক্ষেপিয়ে তুলেছে তার প্রতি সদয় হওয়া সবাইকে।

কেউ আর কাজ দেয় না। নেই কোনো গানেরও শো। বেঁচে থাকার তাগিদে আবার সেই স্টেশন চত্বরেই ফিরে আসতে হলো তাকে।

প্রসঙ্গত, গত বছর রানাঘাট স্টেশনে গান গাওয়ার সময় অ’তীন্দ্র নামে এক যুবক তার গান রেকর্ড করে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। মুহূর্তেই সেটি ভাই’রাল হয়ে যান।

টিকট’ক ভরে যায় রানুর কণ্ঠ আর গানের ভিডিওতে। এরপর তার গান নজরে আসে হিমেশ রেশমিয়ার। তিনি তাকে বলিউডের একটি ছবির গানে কণ্ঠ দেয়ার সুযোগ দেন।

তারপর থেকেই নানা রিয়েলিটি শোতেও ডাক পরে রানুর। কিন্তু শিক্ষা, রুচি ও সুন্দর আচরণের অভাব রাতারাতি সেনসেশনে পরিণত হওয়া রানু মণ্ডলকে ছুড়ে ফেললো আবার সেই রাস্তায়ই।

৬ ধর্ষণ: চকোলেট বিক্রেতা কিশোরীকে বাসে, স্বামীকে জিম্মি করে গাড়িতে গৃহবধূকে

নরসিংদীর পলাশে স্বামীকে পিস্তলের মুখে জিম্মি করে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে এক কাউন্সিলরের ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। নির্যাতিত গৃহবধূ

গতকাল রবিবার সকালে পলাশ থানায় মামলাটি করেন। অভিযুক্ত পাপ্পু খন্দকার উপজেলার ভাগ্যেরপাড়া গ্রামের আবদুল ছাত্তার খন্দকারের ছেলে ও ঘোড়াশাল পৌরসভার ২ নম্বর

ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আলম খন্দকারের ছোট ভাই।এদিকে গাজীপুরে তাকওয়া পরিবহনের চলন্ত বাসে এক কিশোরীকে (১৬) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় বাসটির চালককে

গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ ও নোয়াখালীতে শিশুসহ চারজনকে ধর্ষণ ও একজনকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। বগুড়ার ধুনট উপজেলায়

বৃহস্পতিবার রাতে বাকপ্রতিবন্ধী নারী ধর্ষণ মামলার আসামি কাঠমিস্ত্রি আবুল কালামকে (২৭) শনিবার রাতে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। গতকাল তাঁকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

তিনি উপজেলার গোপালনগর গ্রামের মোকবুল হোসেন মকুলের ছেলে।পলাশ উপজেলায় নির্যাতিত গৃহবধূর পরিবার ও পুলিশ জানায়, গৃহবধূর স্বামী অভিযুক্ত পাপ্পু খন্দকারের

কাছে কয়েক মাসের বেতন পান। বেতন না দেওয়ায় কষ্টের জীবন যাপন করতে হচ্ছে তাঁদের। একপর্যায়ে টাকা চাইতে গেলে গত ২৬ অক্টোবর রাতে টাকা দেওয়ার কথা

বলে তাঁদের (গৃহবধূ ও তাঁর স্বামী) ব্যক্তিগত ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে ডেকে নেন পাপ্পু। পরে সেখানে স্বামীকে পিস্তলের মুখে জিম্মি করে ব্যক্তিগত গাড়ির ভেতরে গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন পাপ্পু।

পিস্তলের ভয় দেখিয়ে ঘটনাটি কাউকে না জানাতে হুমকিও দেওয়া হয়। ভয়ে বিষয়টি কাউকে জানাননি তাঁরা। কিন্তু কয়েক দিন ধরে পাপ্পু গৃহবধূকে তাঁর কাছে এনে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here