অভিনেত্রী মধুমিতা সরকার বেশ কয়েকমাস ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরব। প্রতিদিনই একাধিক ‘আবে’দনময়ী’ ছবি পোস্ট করেন ফেসবুক-ইনস্টাগ্রামে। আর তাতেই

দুই বাংলার তরুণরা বুঁ’দ হয়ে পড়েছেন! মধুমিতা সরকারের নতুন ছবি মানেই ভুরি-ভুরি রি’য়্যাকশন, কমেন্ট এবং শেয়ার। তার ভ’ক্তদের মধ্যে বড় একটা অংশ

বাংলাদেশের। বিশেষ করে তরুণরাই এ নায়িকার বেশ বড় ফ্যান! এরইমধ্যে বাংলাদেশি তরুণদের জন্য সুখবর দিলেন এ অভিনেত্রী। তিনি নাকি

এদেশের কাউকে বিয়ে করতে চান! তবে বিষয়টি নিচকই মজা করে বলেছেন এ অভিনেত্রী! তবে এ কথা একেবারেই ফেলে দেয়ার মতো না। ২০১৫ সালে

প্রাণ পৃথিবীতে আসার আগে আমরা আলাদা হয়ে গেছি সেটাই সবথেকে বড় বিষয়।বাংলাদেশে আপনার অনেক ফলোয়ার; যদি নতুন সম্পর্ক গড়ার

ইচ্ছে হয় তাহলে সাড়া দেবেন? উত্তরে হাসিমুখে মধুমিতা বলেন, মনের মানুষ পেলে সম্পর্ক তো গড়াই যায়। তবে দুজনের দৃষ্টিভ’ঙ্গি এক হওয়া চাই!

এদিকে ভারতীয় এ শিল্পী ২০১৬ সালে আগস্টে বাংলাদেশের একটি টেলিছবিতে কাজ করেছেন। ভারতের মানালিতে এর কাজ হয়েছে; নাম ‘‌মেঘবালিকা’।

এতে তিনি মোশাররফ করিমের বিপরীতে অভিনয় করেছেন। মহিউদ্দীন আহমেদের রচনায় এটি নির্মাণ করছেন পরিচালক পারভেজ আমিন। সম্প্রতি মৈনাক ভৌমিকের চলচ্চিত্র ‘

চিনি’র কাজ শেষ করেছেন মধুমিতা। শিগগিরই হইচই সিরিজে ‘দেবদাস ও একটি খু-নের গল্প’তে কাজ করবেন তিনি। এতে তার বিপরীতে থাকছেন অর্জুন। যার সঙ্গে চলছে নায়িকার প্রেমের গু’ঞ্জন।

সকালে উপহার বিকালে দুই র‌্যাব সদস্যকে ভারতে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ!

নাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার বি-আমতলী সরস্বতীপুর সীমান্তে অভিযানে যাওয়া দুই র‌্যাব সদস্যকে আটক করে নিয়ে গেছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)।

এ ঘটনায় বিজিবির পক্ষ থেকে পতাকা বৈঠকের জন্য বিএসএফের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে।গতকাল মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) দুপুর ২টার দিকে ওই সীমান্তের মেইন পিলার ৩০৭,

সাব-পিলার-১-এর কাছ থেকে তাদের আটক করে নিয়ে যায় বিএসএফ। আটককৃতরা হলেন, র‌্যাব-১৩ দিনাজপুর সিপিসি-১-এর সহ-অধিনায়ক (এএসপি)

শ্যামল চং ও কনস্টেবল আবু বকর সিদ্দিক।স্থানীয়রা জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বি-আমতলী সরস্বতীপুর সীমান্তের সমজিয়া মণ্ডলপাড়া এলাকায় মাদকের

বিরুদ্ধে মোটরসাইকেলযোগে সিভিল পোশাকে অভিযানে যায় ৫ জন র‌্যাব সদস্য। দুটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে তারা অভিযানে নামে। এক গ্রুপে তিন জন,

অন্য গ্রুপে দুই জন। অভিযানের একপর্যায়ে তারা ভুল করে ভারতের একটি গ্রামে ঢুকে পড়ে এবং সেখান থেকে ৩ জন র‌্যাব সদস্য ভারতীয়

নাগরিক ইসরাফিলের ছেলে মিলনকে আটক করে।এ সময় মিলন চিৎকার শুরু করে। তখন মোশাররফ মাস্টার ও হিরোসহ কয়েকজন মিলনকে ছিনিয়ে নিয়ে র‌্যাব

সদস্যদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় সেখানে থাকা ৩ জন র‌্যাব সদস্য এক রাউন্ড গুলি ছুড়ে কৌশলে পালিয়ে আসে। গুলির শব্দ শুনে অপর প্রান্তে থাকা

দুই র‌্যাব সদস্য সঙ্গীদের উদ্ধারে এগিয়ে যায়। ততক্ষণে ঘটনাস্থলে এসে বিএসএফ সদস্যরা স্থানীয় জনগণের সহায়তায় ওই দুই র‌্যাব সদস্যকে আটক করে তাদের

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here