আকাশ পথে ভ্রমণের সময় দেখা যায় বিভিন্ন সময় আকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে যান্ত্রিক ত্রুটি কিংবা অন্যান্য পরিবেশগত কারণে অনেক সময়

এই দুর্ঘটনা ঘটে থাকে মূলত আকাশপথে দুর্ঘটনা ঘটে যাত্রীদের তেমন কিছু করার থাকেনা এবং অনেকেই না ফেরার দেশে চলে যান সম্প্রতি মালয়েশিয়াতে এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে

সেখানে দুটি হেলিকপ্টার চলন্ত অবস্থায় যখন আকাশে উড়ছিল তখন দুটির মাঝে মুখোমুখি ভাবে ঘর্ষণ সৃষ্টি হয় এবং অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটে যায়

স্থানীয় সময় রোববার ( ৮ নভেম্বর) সকাল ১১টার দিকে কুয়ালালামপুরের তামান মেলাওয়াতি স্কুলের পিছনের একটি হাউজিং এলাকায় হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত হয়েছে।

এই দুর্ঘটনায় চারজন পুরুষ এবং একজন নারী /আ/হ/ত হন। হাসপাতালে নেয়ার সময় দুজনের মৃত্যু হয়।

আকাশ পথে বিভিন্ন সময় দুর্ঘটনার ঘটনা আমরা শুনে থাকি বিভিন্ন কারণে ঘটনাগুলো ঘটে থাকে মূলত যান্ত্রিক ত্রুটি এবং বিভিন্ন অসভ্যতার কারণে আকাশপথে

এ ধরনের ঘটনা ঘটে প্রায় সময় এবং আকাশপথে এ ধরনের দুর্ঘটনা ঘটলেও প্রাণহানি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বেশি হয়ে থাকে তবে ছোটখাটো হেলিকপ্টার কিংবা প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে তেমনভাবে গুরুতর কিছু ঘটেনা

এএসপি আনিস হত্যা মামলায় ১০ জন রিমান্ডে

আনিসুলের পরিবারও একই অ’ভিযোগ করেছে। তারা জানিয়েছেন, ভর্তির পর পর হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাকে পি’টিয়ে হ’ত্যা করেছে।

তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করায় তারা পুলিশ কর্মকর্তাকে শান্ত করার চেষ্টা করেছেন মাত্র। পরে তার মৃ’ত্যু হয়।

এদিকে হাসপাতাল থেকে সংগ্রহ করা সিসি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা গেছে, বেলা ১১টা ৫৫ মিনিটের দিকে জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার আনিসুলকে টানাহেঁচড়া করে একটি কক্ষে ঢোকানো হয়।

তাকে হাসপাতালের ছয়জন কর্মচারী মিলে মাটিতে ফে’লে চে’পে ধরেন। এর পর আরও দুজন কর্মচারী তার পা চে’পে ধরেন।

এ সময় মাথার দিকে থাকা দুজন কর্মচারীকে হাতের কনুই দিয়ে তাকে আ’ঘাত করতে দেখা যায়। হাসপাতালের ব্যবস্থাপক আরিফ মাহমুদ তখন পাশে দাঁড়িয়েছিলেন।

একটি নীল কাপড়ের টুকরা দিয়ে আনিসুলের হাত পেছনে বাঁ’ধা হয়।কিছুক্ষণ পর আনিসুলকে উপুড় করা হয়। তার শরীর নিস্তেজ হয়ে পড়ায় একজন কর্মচারী তখন তার মুখে পানি ছিটান। পরে কর্মচারীরা কক্ষের মেঝে পানি দিয়ে পরিষ্কার করেন।

সাত মিনিট পর সাদা অ্যাপ্রোন পরা একজন নারী কক্ষে প্রবেশ করেন। ১১ মিনিটের মাথায় কক্ষের দরজা লাগিয়ে দেয়া হয়। ১৩ মিনিটের মাথায় তার বুকে পাম্প করেন সাদা অ্যাপ্রোন পরা নারী।

হৃদরো’গ ইন্সটিটিউটের খাতায় লেখা রয়েছে ‘ব্রট ডেড’ অর্থাৎ সেখানে নিয়ে আসার আগেই আনিসুলের মৃ’ত্যু হয়েছিল।

আনিসুলের ভাই রেজাউল করিম সংবাদমাধ্যমকে জানান, পারিবারিক ঝামেলার কারণে তার ভাই মা’নসিক স’মস্যায় ভুগছিলেন। সোমবার সকালে তারা তাকে নিয়ে মাইন্ড এইড হাসপাতালে যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here