অনেক বন্ধু আছে যারা নিয়মিত জিমে যায়। জিম থেকে ফিরে বা জিমে থাকতেই তাদের শরীরচর্চার ছবি ফেসবুকে বা অন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেন।

আপনি নিজেও কিন্তু একই কাজ প্রায়ই করে থাকেন। লন্ডনের ব্রুনেল বিশ্ববিদ্যালয় একটি গবেষণা পরিচালনা করেছে মানুষের এমন সোশ্যাল অ্যাকটিভিটির ওপর।

তাঁরা খুজতে চেয়েছেন কেনো মানুষ এমন করে।গবেষকদের মতে, শরীরের এই পরিবর্তনের পেছনে কতোটা সময় ব্যয় হয়েছে এটাই তারা জিমে তোলা

ছবির মাধ্যমে বন্ধুদের জানাতে চান। আর গবেষণায় এ-ও দেখা গেছে এ ধরনের স্ট্যাটাসে অন্যান্য পোস্টের চেয়ে বেশি লাইক পান তারা।

strong>ধর্ষণ নিয়ে যা বললেন মিজানুর রহমান আজহারী

ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে জেগে উঠেছে বাংলাদেশ। বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ সোচ্চার হয়েছেন ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে। সিনেমা নাটকের তারকারা যেমন

সচেতন হয়েছেন তেমনি সচেতন হয়েছেন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিত্বকারীরাও। জনপ্রিয় ইসলামি বক্তা মিজানুর রহমান আজহারী সম্প্রতি সামাজিক

যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ধর্ষণবিরোধী একটি স্ট্যাটাস লিখেছেন। এই স্ট্যাটাসটি ১১ সেপ্টেম্বর তিনি তার পেজ থেকে শেয়ার করেন। স্ট্যাটাসটিতে ১ লাখ ৮৪ হাজার

রিঅ্যাকশন এবং ১৩ হাজার কমেন্ট রয়েছে। পোস্টটি শেয়ার হয়েছে ১৯ হাজার বার। সময় নিউজের পাঠকদের জন্য আলোচিত এই স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো।

ধর্ষণ বিস্তারে দিশেহারা জাতি: সমাধান কী?বাংলাদেশে প্রায় প্রতিদিন কোথাও না কোথাও ধর্ষণ হচ্ছে। নারীকে বিবস্ত্র করা হচ্ছে। এই দৃশ্য ধারণ করে

অনলাইনে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। এই বর্বরতা সহ্যক্ষমতার বাইরে। কী একটা অসুস্থ প্রজন্ম গড়ে উঠেছে এ দেশে! আমাদের পরিবারগুলোতে এভাবে ধর্ষক গড়ে

উঠল আর আমরা কেউ টেরই পেলাম না। ভাবতেই গা শিউরে উঠছে। সাধারণ জনগণ না পারছে কইতে, না পারছে সইতে। বিচার চেয়ে মানববন্ধন করতে গেলে

সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বাধা। এভাবে বিচার চাইতে চাইতে ক্লান্ত জনগণ যখন বিচার করার দায়িত্ব নিজ হাতে তুলে নেবে তখন পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ

আকার ধারণ করতে পারে। তাই ধর্ষণের নজিরবিহীন শাস্তি নিশ্চিত হোক— এটাই আজ গণমানুষের দাবি।ধর্ষণ হচ্ছে একটি সেক্সুয়াল ক্রাইম বা সেক্সুয়াল ভায়োলেন্স।

আদতে ধর্ষণ কোনো যৌনতা নয়, এটা পুরুষের ক্ষমতার অপব্যবহার। আর ক্ষমতার ছায়াতলেই মূলত বেড়ে ওঠে ধর্ষকরা। সাধারণত, মানুষ যেটা দেখে

দেখে শিখে সেটা সে নিজে ট্রাই করে দেখতে চায়। সিনেমাতে পরিবারের সবাই মিলে ধর্ষণের দৃশ্য উপভোগ করা সমাজে এর চেয়ে ভালো কিছু হওয়ার তো কথা ছিল না।

যা হওয়ার তাই তো হচ্ছে। উঠতি তরুণ বয়সে রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় ক্ষমতার স্বাদ পেলে— সে ক্ষমতা কে না খাটাতে চায়? দেশের আইন ও বিচারব্যবস্থা যখন

ক্রিমিনাল ফ্রেন্ডলি হয়ে উঠে মূলত তখন অনিয়ন্ত্রিত ও মাত্রাতিরিক্ত উগ্র ক্ষমতার জোরেই এরা ধর্ষণের সাহস করে। ক্ষমতার বলে ও আইনের

ফাঁকফোকর মাড়িয়ে এরা সবসময় থাকে ধরাছোঁয়ার আড়ালে।বাংলাদেশের আবহাওয়া ও পরিবেশে একটি ছেলে অথবা মেয়ে গড়ে ১৪-১৫ বছর বয়সেই পরিপূর্ণ সেক্সুয়াল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here