পা’রিবারিক ক’লহের জে’র ধ’রে স্ত্রী রিক্তা খাতুন ধাঁ’রা’লো ব্লে’ড দিয়ে স্বামী মো. আছাদ মন্ডলের পু’রুষা’ঙ্গ কে’টে দিয়েছে এ অ’মানবিক ঘটনাটি

ঘটেছে রাজবাড়ীর পাংশা পৌর শহরের বি’ষ্ণুপুর গ্রামে।জানা গেছে, শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) রাত অনুমান সাড়ে ৩ টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটে’ছে।

আছাদ মন্ডল বি’ষ্ণুপুর গ্রামের মো. সামাদ মন্ডলের ছে’লে। এ ঘটনায় বাড়ির লো’কজন ও প্র’তিবেশীরা ঘা’তক স্ত্রী রিক্তা খাতুনকে

আ’টক করে পাংশা থানা পু’লিশে সো’র্পদ করেছে। স্বামী আছাদ মন্ডল চি’কিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে তার অ’বস্থা আ’শঙ্কা’জ’নক।

আছাদের স্ত্রী রিক্তা খাতুন বলেন, আমার স্বা’মী আছাদ মন্ডল তার তা’লাক প্রা’প্ত স্ত্রী সালমা বেগমের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলে।

বি’ষয়টি আমি জানার পর (স্বা’মী) আছাদের সাথে আমার প্রায়ই ঝ’গড়া বি’বাদ ও মা’রামা’রি হতো। এই বি’ষটির জে’র ধ’রে গত

রাতে আছাদের সাথে আমার কথা কা’টাকা’টি হয় পরে আছাদ ঘু’মিয়ে পড়লে আমি ধাঁ’রা’লো ব্লে’ড দি’য়ে আছাদের পু’রুষা’ঙ্গ ক’র্তন করি।

অপরদিকে চি’কিৎসাধীন থাকা অব’স্থায় আছাদ জানান, আমি ঘু’মিয়ে ছিলাম এমন সময় আমার স্ত্রী ধা’রা’লো ব্লে’ড দিয়ে আমার পু’রুষা’ঙ্গের উপর হা’ম’লা চা’লায়।

আছাদের প’রিবার সূত্রে জানা যায়, পু’রুষ অ’ঙ্গ কা’টার পর আছাদ ল’জ্জায় কাউকে বি’ষয়টি জা’নায়নি। পরে ব্যা’থার য’ন্ত্রনা স’ইতে না

পেরে সকালে পরি’বারকে জানায় পরে প’রিবারের লো’কজন তাকে বাড়ি থেকে উ’দ্ধার করে পাংশা হা’সপাতালে ভ’র্তি করে এবং

স্ত্রী রিক্ত খাতুনকে আ’টক করে পাংশা থানা পু’লিশের কাছে সো’পর্দ করে। এ রির্পোট লেখা কালিন পাংশা থানায় কেউ লিখিত অ’ভিযোগ দেয়নি বলে জানা গেছে।

strong>ধর্ষণ নিয়ে যা বললেন মিজানুর রহমান আজহারী

ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে জেগে উঠেছে বাংলাদেশ। বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ সোচ্চার হয়েছেন ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে। সিনেমা নাটকের তারকারা যেমন

সচেতন হয়েছেন তেমনি সচেতন হয়েছেন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিত্বকারীরাও। জনপ্রিয় ইসলামি বক্তা মিজানুর রহমান আজহারী সম্প্রতি সামাজিক

যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ধর্ষণবিরোধী একটি স্ট্যাটাস লিখেছেন। এই স্ট্যাটাসটি ১১ সেপ্টেম্বর তিনি তার পেজ থেকে শেয়ার করেন। স্ট্যাটাসটিতে ১ লাখ ৮৪ হাজার

রিঅ্যাকশন এবং ১৩ হাজার কমেন্ট রয়েছে। পোস্টটি শেয়ার হয়েছে ১৯ হাজার বার। সময় নিউজের পাঠকদের জন্য আলোচিত এই স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো।

ধর্ষণ বিস্তারে দিশেহারা জাতি: সমাধান কী?বাংলাদেশে প্রায় প্রতিদিন কোথাও না কোথাও ধর্ষণ হচ্ছে। নারীকে বিবস্ত্র করা হচ্ছে। এই দৃশ্য ধারণ করে

অনলাইনে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। এই বর্বরতা সহ্যক্ষমতার বাইরে। কী একটা অসুস্থ প্রজন্ম গড়ে উঠেছে এ দেশে! আমাদের পরিবারগুলোতে এভাবে ধর্ষক গড়ে

উঠল আর আমরা কেউ টেরই পেলাম না। ভাবতেই গা শিউরে উঠছে। সাধারণ জনগণ না পারছে কইতে, না পারছে সইতে। বিচার চেয়ে মানববন্ধন করতে গেলে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here