কথায় বলে, প্রত্যেক সফল পুরুষের নেপথ্যে থা’কেন এক জন মহিলা। কথাটা যে কতখানি সত্যি তার জ্ব’লন্ত উ’দা’হ’রণ ই’ন্দোরের জৈন দম্প’তি।

স্ত্রী’ নীতির প’রাম’র্শে আজ তাঁর স্বামী গগন কোটি টাকা’র মা’লিক।অবশ্য শুধু’ পরা’ম’র্শ নয়, স্বা’মীর সাফ’ল্যের নেপথ্যে র’য়েছে নীতির প’রিশ্রম

এবং প্রতিভাও। আর সাফল্য একা গগনেরই নয়, তার ভাগীদার নী’তিও। তাঁদের ভা’গ্যের উড়া’নের সূচ’না ওমা’নের মা’স্কট শ’হরে। এক সময়ে’ কর্মসূত্রে সেখানেই থা’কতেন গ’গন আর নীতি।

স্ত্রী’-কে নিয়ে একটি ‘ফ্যাশান ব্র্যান্ডে’র হয়ে সেখানে চাক’রি করতে গি’য়ে’ছিলেন গগন। স্বামী অফি’সে বেরিয়ে’ গেলে একা লা’গত নী’তির। কী’ ভাবে সময়

থাকা রংবেরং-এর নক্সাগুলো ফুটিয়ে তু’লতে লাগ’লেন গগনের শা’র্টে।গগন দেখলেন, তাঁর শার্টে অসাধারণ ডিজাইন করেছেন স্ত্রী’। সেই শার্ট

পরেই অফিস যাওয়া শুরু কর’লেন তিনি। গগন হয়’তো ভাবতেও পারেননি, তাঁর স্ত্রী’য়ের ডিজাইন করা শার্টগু’লো তাঁর প্রত্যেক স’হক’র্মীর দৃ’ষ্টি আকর্ষ’ণ করবে।

শুধু তা-ই নয়, কলিগরা খোঁজ নেওয়া শুরু করলেন, কোত্থে’কে এমন চ’মৎকার শার্ট কিনেছেন গগন। গগন যখন জানা’লেন, তাঁর স্ত্রী’ ডিজাইন করেছেন শার্টগুলো,

তখন সহক’র্মীরা এরকম শার্ট কে’নার ইচ্ছে প্রকাশ ক’রলেন।সেই থেকেই বিজ’নে’স আইডিয়া এলো নী’তির মা’থায়। তিনি ভাবলেন,

কেমন হয় যদি দু’জনে মি’লে নীতি’র ডিজা’ইন করা শার্ট ব্যবসায়িক ভিত্তিতে উৎপাদন এবং বিক্রি শুরু করেন। যেমন ভাবা তেমনি কাজ। ইতি’মধ্যে

মাস্কট ছেড়ে ইন’দৌরে চলে এসেছিলেন দু’জনে। সেখা’নেই ‘রংরেজ’ নামে স্টার্ট’আপ শুরু করলেন গগন-নীতি।কোটি টাকাসাফল্য পেতে ‘রংরেজ’-এর বেশি সময় লাগেনি।

আজ রংরেজ-এর তৈরি করা শার্টের সুনাম দেশে-বিদে’শে ছড়িয়ে পড়েছে। শুধু ইনদৌর নয়, যোধপুরেও খোলা হয়েছে কোম্পানির নতুন সেন্টার।

শা’র্টের পা’শাপাশি আজ গগন-নীতির স্টার্টআপ হ্যান্ডিক্রাফ্ট, বালিশ, বেডসিট এবং ই’ন্টিরিয়র ডেকরেটিং আইটেমও তৈরি করেন।

২০০ জনের মতো কর্মী কাজ করেন গগন-নীতির অধীনে। নীতি তাঁ’দের কাজকর্ম তত্ত্বাবধান করেন, হাতে ধরে কাজ শেখান। আর শার্ট

এবং অ’ন্যান্য দ্রব্যে’র ডি’জাইন যে তিনি নিজে হাতেই করেন, তা তো বলাই বাহুল্য। উৎপা’দিত দ্র’ব্যের বিপ’ণনের যাবতীয় দায়িত্ব সাম’লান গগন।

১৫ লক্ষ টাকার পুঁজি নিয়ে স্টার্টআপ শুরু করে’ছিলেন নীতি আর গগন। আজ তাঁদের কো’ম্পানির মা’সিক রোজ’গার দু’কোটি টাকা ছাড়িয়ে গি’য়েছে। নীতির প্র’তিভা এবং আই’ডিয়া বদলে ‘দিয়েছে দু’জনের জীবন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here