নাগরিক ঐক্যর আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কী হয়েছিল আপনারা জানেন। ভোট ডাকাতি হয়েছিল।

এই অবৈধ সরকার ভোট চোর। তখন থেকে সারা দেশে সিটি, পৌর, ইউনিয়ন পরিষদসহ যতগুলো ভোট হয়েছে, তাতে ভোট ডাকাতি করা হয়েছে।

এজন্য আগামী নির্বাচনে ভোট ডাকাতদের গলায় গামছা লাগাতে হবে।শুক্রবার সন্ধ্যায় বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার নাগরবন্দর মোড়ে নাগরিক ঐক্যের

এক কর্মী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।কর্মী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন শিবগঞ্জ উপজেলা নাগরিক ঐক্যর আহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম।

তিনি বলেন, আপনারা ভোট দেন একজনকে জিতেন আরেক জন, ভোট পাবেন একজন, জিতবেন আরেক জন। কথায় আছে না খায় দায় চিকন আলী,

মোটা হয় জোব্বার, এখন এই পরিস্থিত সৃষ্টি হয়েছে। তাই ভোটাধিকার পুনরুদ্ধার করতে হলে এই অবৈধ সরকারকে বিদায় দিতে হবে।

প্রয়োজনে আপনাদেরকে রাজপথে নামতে হবে। তাদেরকে আর ক্ষমতায় থাকতে দেওয়া যাবে না।মান্না বলেন, গত নির্বাচনে পুলিশ

এই অবৈধ সরকারকে ভোট ডাকাতি করার সহযোগিতা করেছে। তাই থানার ওসিরা বিনা ভোটের এমপি ও জনপ্রতিনিধিদেরকে পাত্তাও দেন না, সম্মানও দেন না

বউকে ‘আপন বোন’ বানিয়ে চাকরি নেয়ার ঘটনায় দুই শিক্ষক বরখাস্ত

জামালপুরের বকশীগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধার ভুয়া সন্তান হিসেবে চাকরি নেয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষককে বরখাস্ত করেছে শিক্ষা অধিদফতর।

বরখাস্ত হওয়া দুইজন হলেন- টুপকার চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নাসরিন আক্তার ও খেয়ার চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শাপলা আক্তার।

২৭ অক্টোবর তাদের বরখাস্ত করা হয়। বৃহস্পতিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কার্যালয়ের সূত্রে জানা গেছে, নাসরিন আক্তার রবিয়ার চর গ্রামের বাসিন্দা ও মাদারের চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আশরাফুল আলমের স্ত্রী। আর আশরাফুলের খালাতো বোন শাপলা।

আশরাফুল বীর মুক্তিযোদ্ধা সহিদুর রহমানের ছেলে। তিনি মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরি নেন। শুধু তা-ই নয়, তিনি স্ত্রী নাসরিন

ও খালাতো বোন শাপলাকে সহিদুর রহমানের নিজের সন্তান হিসেবে দেখিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরি নিয়ে দেন।

এ বিষয়ে নিয়ে ‘বউকে আপন বোন বানিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরি’ শিরোনামে চলতি বছরের ২৯ আগস্ট ডেইলি বাংলাদেশে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

সে সময় শাপলা আক্তার বলেছিলেন, মুক্তিযোদ্ধা কোটায় তার চাকরি হয়েছে কি না, তিনি জানেন না। আশরাফুল

তার চাকরির ব্যবস্থা করেছেন। এ জন্য ১০ লাখ টাকাও নিয়েছেন। আশরাফুল ও নাসরিন ভাই-বোন নন, স্বামী-স্ত্রী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here