খুব সহজেই ফর্সা হওয়ার উপায় হচ্ছে এই দুধের সরের রুপচর্চা টি। এটা মাত্র ২ থেকে ৩ বার ব্যবহার করলেই আপনার কালো ত্বক খুব সুন্দর ফর্সা হয়ে যাবে।

এই টিপস টি দিনেও ব্যবহার করা যাবে তবে খুব ভাল ফলের জন্য রাতে ব্যবহার করা ভাল।এটা তৈলাক্ত ও শুষ্ক যেকোন ত্বকেই ব্যবহার করা যাবে।

উপকরণ ও ব্যবহার বিস্তারিত জানতে নিচের ভিডিও দেখুনঃ

চিরকাল সুন্দর থাকতে ঘুমানোর আগে করুন ছোট্ট এই কয়েকটি কাজ! যদি সৌন্দর্য ও স্বা’স্থ্য দুটোই ধ’রে রাখতে চান তাহলে রাতের বেলা ঘু’মানোর আগে কিছু কাজ অবশ্যই করা উচিত।

ত্বক ভালো করে প’রিষ্কার করে নেয়া জরুরী। তুলোয় ক্লিনজিং মিল্ক নিয়ে মুখটা প’রিষ্কার করে নিন। তারপর ভালো ফেসওয়াশ ও কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিন।

৩) ঘু’মানোর আগে মুখের ত্বক ময়েশ্চারাইজ করা খুব জরুরী। যাদের একটু বয়স হয়েছে, তারা অ্যান্টি রিংকেল ক্রিম মাখবেন।

অন্যরা নিজে’র ত্বকের ধ’রণ বুঝে সাধারণ ময়েসচারাইজার। ৪) ঘু’মানোর আগে চুল স’ম্পূর্ণ শুকনো রা খু’ন। লম্বা চুল হলে বেঁধে ফেলাই ভালো।

৬) খুব ভালো হয় যদি ঘু’মের আগে বি’ছানাটা বদলে নিতে পারেন। বি’ছানার চাদর, বালিশ সব বদলে ফেলুন। এটা আপনার স্বা’স্থ্যের জন্য ভালো। তাছাড়া সুতির নরম চাদরে ঘু’ম ভালো হয়।

৭) যাদের ঘু’মের স’মস্যা, তারা ঘু’মের আগে এক গ্লাস উ’ষ্ণ দুধ পান করবেন। খুব ভালো হয় সাথে একটি কলা খেলে। এতে ঘু’ম হবে চমৎকার।৮) ঘু’মানোর অন্ত’ত ৩ ঘণ্টা আগে ডিনার সেরে ফেলুন।

জামার্নিতে বসে ভাড়াটে খুনি দিয়ে নির্মম ভাবে মাকে হত্যা

জামার্নিতে বসে সৎ মাকে খুনের পরিকল্পনা। সে অনুযায়ী ভাড়া করা হয় খুনি। ভাড়াটে সেই খুনি ভাড়াটিয়া সেজে ঢোকেন বাড়িতে।

কুপিয়ে হত্যা করেন সেলিনা খানম নামের ওই গৃহবধূকে। পরিবারের দাবি বাবার দ্বিতীয় বিয়ে মেনে নিতে পারেনি ছেলে। তাই এই হত্যাকাণ্ড। ওই ঘটনায় এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরের হুজুরপাড়া এলাকার এই বাড়িতে পরিবারসহ থাকতেন সেলিনা খানম। ২রা অক্টোবর রাতে দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে জখম করে।

হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।গেলো জানুয়ারিতে প্রথম স্ত্রী মারা যাওয়ার তিনমাস পর নিজের শালিকাকে বিয়ে করেন এস এম ওবায়দুল্লাহ।

বাবার দ্বিতীয় বিয়ে মেনে নিতে পারেননি জার্মান প্রবাসী ছেলে বিপ্লব।বাবাকে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে হত্যার হুমকি দেন ছেলে। বাবার দাবি তার ছেলেই দ্বিতীয় স্ত্রীকে ভাড়াটিয়া খুনী দিয়ে হত্যা করেছে।

নিহতের স্বামী এস এম ওবায়দুল্লাহ বলেন,’আমার ছেলেকে মিসগাইড করা হয়েছে। আমার পরিবার থেকেই এটা ঘটানো হয়েছে। সন্ত্রাসীরা এরা হলো ভাড়াটে।’

পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও এই খুনের জন্য দায়ী করছেন জার্মান প্রবাসী বিপ্লবকে। ছোট মেয়ে ফারজানা ইসলাম ইতি বলেন,

‘যখন আমার বাবা বিয়ে করে বা আমরা জানতে পারি তখন আমরা এটা মেনে নিয়েছি। কিন্তু এটা নিয়ে আমার ভাই ক্ষিপ্ত ছিলো। আমরা ভাইকে আমরা কোন ভাবেই বুঝাতে পারি নাই।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here