পাঞ্জাবের মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে সানি লিওন। তিনি ছোট থেকেই পরিবারের বিভিন্ন সমস্যাগুলো খুব কাছ থেকে দেখেছিলেন।

অর্থের অভাবই হোক বা শান্তির, এক সময় সানি অনেক টাকার খোঁজে বাড়ির বাইরে পা রেখেছিলেন। তাঁর উদ্দেশ্যে ছিল একটাই অনেক, টাকা রোজগার করতে হবে। স্বপ্ন পূরণের পথটা শুধু গিয়েছিল বদলে।

লেখা পড়াতে ভালোই ছিলেন সানি, স্বপ্ন ছিল নার্স হবেন। সেই মতই চলছিল প্রস্তুতি। কিছুদিনের মধ্যেই বদলে গিয়েছিল সবটা।

বাড়িতে নিত্য অশান্তি হচ্ছিল অর্থের অভাবে। সমস্যাগুলো আর নিতে পারছিলেন না সানি। বেরিয়ে পড়েছিলেন চাকার খোঁজে।

কিন্তু তখনও তাঁর সাহস হয়নি সত্যি কথা বলার। জানতেন কেবল তাঁর ভাই। সব সময় পাশে ছিলেন তিনি সানির।

বাড়িতে এত গুলো টাকা মেয়ে পাঠিয়েছে দেখে সকলেই অবাক, সানি জানিয়েছিলেন তিনি লটারি পেয়েছেন। কিন্তু এই মিথ্যে বেশিদিন স্থায়ী হয়নি।

বাড়িতে এত গুলো টাকা মেয়ে পাঠিয়েছে দেখে সকলেই অবাক, সানি জানিয়েছিলেন তিনি লটারি পেয়েছেন। কিন্তু এই মিথ্যে বেশিদিন স্থায়ী হয়নি।

এই ছবি বেরোনোর পরই নীল ছবির জগত পেয়েছিল নতুন মুখ। প্যান্থ হাউস তাঁর নাম করণজিৎ কৌর থেকে বলদে দিয়েছিলেন সানি। এরপরই প্রস্তাব এসেছিল নীল ছবিতে কাজ করার। তখন সানির বয়স ১৯ বছর।

এরপর আর কিছুই চাপা থাকে না। ধীরে ধীরে বাড়িতে সবটাই জানাতে হয়েছিল সানিকে। শুরু হয়েছিল নতুন এক সফর।

সেখান থেকেই নীল জগতের হট ফেস হয়ে ওঠেন সানি। সব থেকে বেশি নজর কেড়েছিলেন সেই সময়। সকলকে কড়া টক্কর দিয়ে নিজের জনপ্রিয়তা তৈরি করেছিলেন।

রাষ্ট্রের বিরোধিতা করার দুঃসাহস দেখাবেন না: আইজিপি

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, আমার দেশের স্বাধীনতা, সংবিধান, রাষ্ট্র ও জনগণকে কেউ স্পর্শ করতে পারবে না।

১৮ কোটি মানুষ ও রাষ্ট্র মিলে আমরা সবকিছু মোকাবিলা করব। রাষ্ট্রপক্ষরা শক্তিশালী। রাষ্ট্রের বিরোধিতা করার দুঃসাহস আপনারা দেখাবেন না।

রাষ্ট্রের বিরোধিতা মানে হচ্ছে ১৮ কোটি মানুষের বিরোধিতা। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে হামলা সংবিধান, রাষ্ট্র ও এদেশের জনগণের ওপরে হামলা। রাষ্ট্র এ হামলা আইন, বিধিবিধান অনুযায়ী কঠোর হস্তে মোকাবিলা করবে।

আজ শনিবার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সরকারি কর্মকর্তা ফোরাম আয়োজিত এক সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদে ‘জাতির পিতার সম্মান রাখব মোরা অম্লান’ শ্লোগানে এ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এতে বক্তব্য দেন এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ও বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্টেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি

মো. হেলাল উদ্দিন এবং বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের ২৯টি ক্যাডারের প্রতিনিধিরা। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here