উচ্চ মাধ্যমিক পাশ বেকার ছেলেদের বয়ফ্রেন্ডের চাকরি দি’চ্ছে একটি সং’স্থা। আর এর জন্য পা’রিশ্র’মিক হিসেবে তারা পাবেন ২৫০ থেকে ৪০০ টাকা।

এছাড়াও ছেলের যো’গ্যতা অনুযায়ী বাড়তে পারে টাকার অ’ঙ্ক। শিক্ষিত, যোগ্যতা স্মা’র্টনেস মিলিয়েই পা’রিশ্র’মিক দেওয়া হবে।

জা’না গে’ছে একাকী’ মেয়েদের একাকিত্ব কা’টাতে বয়ফ্রেন্ড জোগাড় করে দিচ্ছে সং’স্থাটি। যে নারী বয়ফ্রেন্ড ভাড়া করবে তার নাম এবং সম’স্ত তথ্য গো’পন রাখা হবে।

তবে বয়ফ্রেন্ড বুক করার ক্ষে’ত্রে কিছু নিয়ম আছে। কোনো নারী যদি বয়ফ্রেন্ড ভাড়া ক’রতে চান তাহলে তাকে অনলাইনের মাধ্যমে পুরো প্র’ক্রিয়া স’ম্পন্ন ক’রতে হবে। ‘রেন্ট এ বয়ফ্রেন্ড’

স’ম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে জা’রিনকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল সালমান, করণ সিং গ্রোভার ও গৌতম রোডের মধ্যে কাকে তিনি মা’রতে চান এবং কার স’ঙ্গে স’স্পর্কে জড়াতে চান?

আর কাকেই বা বিয়ে ক’রতে চান?উত্তরে জা’রিন বলেন, ”আমি কাউকেই মা’রতে চাই না। আবার বিয়েতেও বিশ্বা’স রাখি না।

আমা’র মতে বিয়ে একটা স্বচ্ছ প্রতিষ্ঠান, তবে বর্তমান যুগে এসে এটা একটা ঠাট্টার বি’ষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তবে করণ ও গৌতম দুজনেই যেহেতু বিবাহিত, তাই সালমানের স’ঙ্গে ই স’স্পর্কে জড়াতে চাই। সালমানের স’ঙ্গে আমা’র বিয়ে হচ্ছে এমন গু’জব ছড়াতেও আমা’র বেশ ইচ্ছে করে।”

নিজের স্কুলের ছাত্রকে নিয়ে পা’লিয়ে বিয়ে করলেন শিক্ষিকা। তারপরেই ঘটে গেলো অঘটন…

“স্কুলছাত্র ও শিক্ষিকা পা’লিয়ে বিয়ে করেছেন”, এইকথা এখন গ্রামের সবথেকে মুখরোচক খবর। সবার মুখে এখন তাদের কথাই ঘোরাঘুরি করছে।

এলাকার মানুষদের কথা শুনে জানা যায় যে স্কুল এবং কলেজের এস.এস.সি পরীক্ষার্থী স্কুলছাত্র অর্পন, তার ডাকনাম শুভ। সে তিনদিন আগে পা’লিয়ে যায় তার ক্লাস শিক্ষিকা সুবর্নার স’ঙ্গে। জানা যায় তারা পা’লিয়ে গিয়ে বিয়ে করেছে।

ছেলেটি বান্দুরা গ্রামের মঞ্জুর ছেলে আর মে’য়েটি পাশের হাসানাবাদ গ্রামের মে’য়ে। এলাকাবাসী জানায় মে’য়েটির এটা তৃতীয় বিয়ে।

বিভিন্ন সময় ওই শিক্ষিকা নানা অজুহাতে ওই ছাত্রের বাড়ি যেত। কেউ সেই বি’ষয়ে নজর দেয়নি কারন তাদের ছাত্র শিক্ষিকার সম্প’র্ক ছিল।

পু’লিশ ও স্থানিয় সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী গত সোমবার রাতে প্রেমের টানে ছাত্রের হাত ধরে প’লাতক শিক্ষিকা। ছেলেটি অপ্রা’প্তব’য়স্ক হওয়ায়

তার পরিবারের লোক থানায় অ’ভিযোগ করে। সেই শিক্ষিকা যে তার ছাত্রকে নিয়ে পালাবে তা কখনো কল্পনাও করতে পারেনি কেউ। সেই রাতেই পু’লিশ ত’দন্ত শুরু করে দেয়।

তারপর মঙ্গলবার রাতে ঐ শিক্ষিকার বাড়ি থেকে উ’দ্ধার করা হয় অর্পন এবং তার শিক্ষিকাকে। তখনই সেই শিক্ষিকাকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

বুধবার সকালে লিখিত মুচলেখায় ছাড়া পায় অর্পন। তবে সুবর্না ও অর্পন পু’লিশের কাছে দাবী করে যে তারা কোর্ট ম্যারেজ করেছে।

আরো এরকমই এক ঘ’টনা জানা যায় পলা’শী হাইস্কুলের। সেই স্কুলের এক শিক্ষক স্কুলে পড়ানোর স’ঙ্গে স’ঙ্গে প্রাইভেট টিউশনও পড়াত।

আর সেই সূত্র ধরে সেই স্কুলের দশম শ্রেণীর এক ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্প’র্ক তৈরি করে শিক্ষক। শুধু তাই নয়, তার স্ত্রী’কে গো’পন রেখে আটমাস আগে বিয়ে করে সেই ছাত্রীকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here