না ফেরার দেশে চলে গেলেন দেওয়ানবাগী পীর সৈয়দ মাহবুব এ খোদা। তার পরিবার থেকে জানা যায় স্টোর জনিত কারণে এই ঘটনা ঘটেছে এবং

তারপর তাকে গতকাল ভোরে রাজধানীর একটি হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন যদিও এর আগে বছর

তিনেক আগে একবার শোনা গিয়েছিল যে দেওয়ানবাগী পীর না ফেরার দেশে চলে গিয়েছে তবে পরবর্তীতে সেটির সত্যতা প্রকাশ্যে আসে

এবং জানা যায় যে এটি আসলে গুজব ছিল তবে এবার সত্যিকার অর্থেই না ফেরার দেশে পা বাড়ালেন দেওয়ানবাগী পীর

দেওয়ানবাগ দরবার শরীফের ফেসবুক পেজে জানানো হয়েছে, তার নামাজে জানাজা মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) বাদ জোহর অনুষ্ঠিত হবে।

জানাজা শেষে দেওয়ানবাগী পীরকে বাবে মদিনা দেওয়ানবাগ শরীফে তার স্ত্রীর পাশে সমাহিত করা হবে।সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) ভোর ৬টা ৪৮ মিনিটে ইন্তেকাল করেন দেওয়ানবাগী পীর।

তার বয়স হয়েছিলো ৭০ বছর।দেওয়ানবাগের পরিচালক ড. আরসাম কুদরত এ খোদা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়,

১৯৭১ সালে স্বাধীনতাযুদ্ধে দেওয়ানবাগী পীর ৩ নম্বর প্লাটুন কমান্ডার হিসেবে পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সাহসিকতার সঙ্গে যুদ্ধ করেন।

যুদ্ধ শেষে তিনি সেনাবাহিনীর ১৬ বেঙ্গল রেজিমেন্টে ধর্মীয় শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তিনি সর্বমোট ১১টি দরবার ও শতাধিক খানকাহ প্রতিষ্ঠা করেন।

এবার দেওয়ানবাগী দরবার শরীফের পীরসৈয়দ মাহবুব এ খোদা দেওয়ানবাগীকে দাফনের আগে গার্ড অফ অনার দেওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে মূলত মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ

অবদানের জন্য দেওয়ানবাগ দরবার শরীফের পীরকে এই কার্ড প্রদান করা হবে এবং গণমাধ্যমকে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মতিঝিল জোনের এডিসি এনামুল হক

অবৈধ সরকারের সময় শেষ হয়ে আসছেঃ নূর

২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের দিনকে (৩০ ডিসেম্বর) ‘ভোটাধিকার হরণের দিন’ আখ্যা দিয়ে ডাকসুর সদ্য সাবেক

ভিপি নুরুল হক নূরের সংগঠন ছাত্র, যুব, শ্রমিক পরিষদ কালো পতাকা মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে।

আজ বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) দুপুরে ডাকসুর সদ্য সাবেক ভিপি নুরুল হক নূরের সংগঠন ছাত্র, যুব, শ্রমিক পরিষদ কালো পতাকা মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে।

সমাবেশে বক্তারা বর্তমান সরকারকে ‘ভোটারবিহীন অবৈধ সরকার’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন। বক্তারা সরকারকে পদত্যাগ করে দ্রুত সময়ের মধ্য একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেয়ার দাবি জানান।

ভিপি নূর বলেন, পৃথিবীর ইতিহাসে রক্ত এবং ত্যাগ ছাড়া কোনো আন্দোলন সফল হয়নি, অধিকার আদায় হয়নি। তাই দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় ৫২, ৭১, ৯০ এর মতো আরেকবার আপনাদেরকে ত্যাগ স্বীকার করতে হবে।

নুর আরও বলেন, ভারতের মদদে ১-১১ এ নীল নকশার মাধ্যমে দেশের গণতন্ত্র ধ্বংস করে একদলীয় স্বৈরশাসন কায়েম করা হয়েছে।

২০১৪ সাল ও ১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে ভোটডাকাতির নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতায় আছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here