ভারতের চণ্ডীগড়ের হর্ষিত শর্মা বছরে ১৪ মিলিয় বেতনে গুগলে চাকরি নিয়ে পাড়ি দিচ্ছেন আমেরিকায়।

আগস্টেই আমেরিকা রওনা দিচ্ছেন তিনি। চণ্ডীগড়ের সেক্টর ৩৩-এর গভর্নমেন্ট মডেল সিনিয়র সেকেন্ডারি স্কুলের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন হর্ষিত। বর্তমানে পড়াশোনা করছেন আইটি নিয়ে।

গুগলের আইকন ডিজাইনের জন্য তাঁকে এই চাকরি দিয়েছে বিখ্যাত সংস্থাটি। গুগলে গ্রাফিক ডিজাইনার হিসেবে যোগ দিচ্ছেন তিনি।

স্বাভাবিকভাবেই আপ্লুত হর্ষিত। ১০ বছর বয়স থেকেই ডিজাইনিংয়ের নেশা হর্ষিতের। চাচার কাছে এই বিষয়ে হাতেখড়ি তার।

এখানেই শেষ নয়। আরও বড় কিছু চেয়েছিলেন তিনি। গুগলে চাকরির জন্য অনলাইনে খোঁজ করতে শুরু করেন।

চলতি বছরের মে মাসেই নিজের ডিজাইন করা সমস্ত পোস্টার সেখানে পাঠান হর্ষিত। তা দেখেই গুগল একটি বিশেষ প্রোগ্রামের জন্য হর্ষিতকে বেছে নেয় বলে সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন তিনি।

এই স্পেশ্যাল প্রোগ্রামের জন্য তাঁকে প্রথমে এক বছরের একটা প্রশিক্ষণ দেবে গুগল। প্রশিক্ষণের সময় ৪ লক্ষ টাকা করে স্টাইপেন্ড পাবেন তিনি।

প্রশিক্ষণ শেষে প্রতি মাসে হর্ষিত পাবে ১২ লক্ষ টাকা। তবে এই স্পেশ্যাল প্রোগ্রামটি কী নিয়ে তা জানাননি হর্ষিত।

অবৈধ সরকারের সময় শেষ হয়ে আসছেঃ নূর

২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের দিনকে (৩০ ডিসেম্বর) ‘ভোটাধিকার হরণের দিন’ আখ্যা দিয়ে ডাকসুর সদ্য সাবেক

ভিপি নুরুল হক নূরের সংগঠন ছাত্র, যুব, শ্রমিক পরিষদ কালো পতাকা মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে।

আজ বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) দুপুরে ডাকসুর সদ্য সাবেক ভিপি নুরুল হক নূরের সংগঠন ছাত্র, যুব, শ্রমিক পরিষদ কালো পতাকা মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে।

সমাবেশে বক্তারা বর্তমান সরকারকে ‘ভোটারবিহীন অবৈধ সরকার’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন। বক্তারা সরকারকে পদত্যাগ করে দ্রুত সময়ের মধ্য একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেয়ার দাবি জানান।

ভিপি নূর বলেন, পৃথিবীর ইতিহাসে রক্ত এবং ত্যাগ ছাড়া কোনো আন্দোলন সফল হয়নি, অধিকার আদায় হয়নি। তাই দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় ৫২, ৭১, ৯০ এর মতো আরেকবার আপনাদেরকে ত্যাগ স্বীকার করতে হবে।

নুর আরও বলেন, ভারতের মদদে ১-১১ এ নীল নকশার মাধ্যমে দেশের গণতন্ত্র ধ্বংস করে একদলীয় স্বৈরশাসন কায়েম করা হয়েছে।

২০১৪ সাল ও ১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে ভোটডাকাতির নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতায় আছে।

বর্তমান সরকারকে স্বৈরাচার আখ্যা দিয়ে ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুর আরও বলেন, স্বৈরাচার সরকারের কাছে দেশে আজ কেউই নিরাপদ নয়।

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি খুন হয়েছেন, পুলিশ সেনাবাহিনীর একজন মেজরকে গুলি করে মারল, ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা আবরার, বিশ্বজিতের মতো অসংখ্য মানুষকে হত্যা করেছে।

নুর বলেন, ছাত্রলীগ, যুবলীগ গুণ্ডালীগ এবং ভারেতর দালাল প্রশাসনের মাধ্যমে সরকার জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে দেশে স্বৈরতন্ত্র কায়েম করেছে।

এর বিরুদ্ধে সবাইকে জেগে উঠতে হবে। সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচার নিশ্চিতের যে লক্ষ্য-উদ্দেশ্য নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল বিজয়ের ৫০ বছরেও তা অর্জিত হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here