বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, ভারত নিজেদের স্বার্থে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ও চালু করে। রোববার (৩ জানুয়ারি)

সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা জানান।মন্ত্রী বলেন, ভারত তার স্বার্থের কথা ভেবে কখনও কখনও পেঁয়াজ ছাড় করে,

আবারও হুট করে বন্ধও করে দেয়। এখন আবার তারা রফতানি শুরু করেছে। আমরা দেশের কৃষকদের স্বার্থের বিষয়টি বিবেচনা করব।

ভোক্তারা যাতে কোনো সংকটে না পড়ে সেটাও গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে।তিনি বলেন, আমরা তিন বছরের মধ্যে পেঁয়াজে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে চাই।

আর খুচরা বাজারে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। তবে দেশি পেঁয়াজের দামও একই রকম। এজন্য ভোক্তারা দেশি পেঁয়াজে ঝুঁকছে।

ফলে কৃষকরা ক্ষতির মুখে পড়বে না।পেঁয়াজের ক্রাইসিস নিয়ে চিন্তার কিছু নেই উল্লেখ করে টিপু মুনশী বলেন, মার্চের শেষ দিকে দেশে নতুন পেঁয়াজ উঠবে।

সেসময় আমরা আবার বিবেচনা করে দেখব, আমদানির প্রয়োজন পড়বে কিনা। মন্ত্রী বলেন, কৃষকরা যাতে ক্ষতির মুখে না পড়েন,

সেই বিবেচনায় আবারও পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক আরোপ করতে চায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।রোববার (৩ জানুয়ারি)

সন্ধ্যায় কৃষি মন্ত্রণালয় ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সঙ্গে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈঠকে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী।

এর আগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অনুরোধ এক দফা নাকচের পর পেঁয়াজের আমদানিতে ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহার করে প্রজ্ঞাপন জারি করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ভারত রফতানি বন্ধ করে দিলে পেঁয়াজ সংকটে পড়ে দেশ। তখন অন্য দেশ থেকে আমদানি সহজ করতে পেঁয়াজের ওপর ধার্য্য ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহার করে সরকার।

তবে সেটি আবারও আরোপ করা হবে।
কোন জিনিসের গন্ধ পেলে না’রীদের উ’ত্তেজনা বেড়ে যায় ১০০ গুন

যে জিনিসের গন্ধ পেলে না’রীদের উ’ত্তেজনা বেড়ে যায় ১০০ গুন- সু’খদায়ক বা স্যাটিস্ফায়িং একটি যৌ’ন মি’লনের প্রথম শর্ত হচ্ছে আপনার পার্টনারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া।

আপনি যে আ’নন্দ পাচ্ছেন সেও ততটুকূ আ’নন্দ পাচ্ছেন কী না তা যখন আপনি নিশ্চিত করতে উৎসাহিত হবেন, তখনই যৌ’নমি’লন আপনে আপ স্যাটিস্ফায়িং হবে।

না’রী কিছুটা উৎপীড়িত হ’তে চায় যৌ’ন মি’লনে- তাই মনোবিজ্ঞান স্বীকার করে যে, পুরু’ষ কিছুটা উৎপীড়ন করতে পারে না’রীকে। কিন্তু প্রহরণ ঠিক শৃঙ্গার নয়-কারণ মি’লনের আগে এর প্রয়োজন নেই।

জল হ্যালিডে এবং নোয়া সোল নামে দুই বিজ্ঞানী এই বিশেষ ছত্রাকটি আবি’ষ্কার করেন।তাঁরা জানিয়েছেন,
এই বিশেষ ছত্রাকের গন্ধ কোনও ম’হিলার নাকে যাওয়া মাত্রই তিনি প্রচণ্ডভাবে উ’ত্তেজিত হয়ে পড়েন।

ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ মেডিসিনাল মাশরুম পত্রিকাতেও একথা দাবি করা হয়েছে যে এই বিশেষ ছত্রাকে একধরনের গন্ধ থাকে যা থেকেই ম’হিলাদের চটদলদি যৌ’ন উ’ত্তেজনা বৃ’দ্ধি পায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here