ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজে’লার কাষ্টভাঙ্গা ইউনিয়নে স’রকারি ঘর দেওয়ার কথা বলে হতদরিদ্রদের নিকট থেকে টাকা নেওয়ার অ’ভিযোগ উঠেছে

ইউপি চেয়ারম্যান আয়ুব হোসেন খানের বি’রুদ্ধে। ২নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বর রাশেদুল ইসলামের যোগসাজসে চেয়ারম্যান হতদরিদ্র পরিবারগুলোর কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন এক লাখ ৬৯ হাজার টাকা।

ঘর না পেয়ে পরিবারগুলো টাকা ফেরত চাইতে গেলে উল্টো হু’মকি দেওয়া হচ্ছে বলে অ’ভিযোগ ভু’ক্তভোগীদের।

এ ঘটনায় ঝিনাইদহের জে’লা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ ও কালীগঞ্জ উপজে’লা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর অ’ভিযোগ দিয়েছেন হতদরিদ্র ১৩ পরিবার।

কাছ থেকে এক বছর আগে স’রকারি জমি আছে ঘর নেই প্রকল্পের ঘর দেওয়ার কথা বলে মোট এক লাখ ৬৯ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

তবে তাদেরকে ঘর দেওয়া হয়নি। এখন টাকাও ফেরত দিচ্ছেন না। টাকা ফেরত চাইতে গেলে তাদের হু’মকি দেওয়া হচ্ছে।

ভুক্তভোগি তরিকুল ইসলাম বলেন, এক বছর আগে ঘর দেওয়ার কথা বলে আমার কাছ থেকে ২২ হাজার টাকা দাবি করে। আমি ঋ’ণ নিয়ে ১৩ হাজার টাকা দিয়েছি।

আমার ঘর দরকার নেই আমি টাক ফেরত চাই। অ’ভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান আয়ুব হোসেন খান বলেন, ‘আমি কোন টাকা নিইনি।

এ বি’ষয়ে আমি কিছুই জানি না। রাশেদুল নাকি টাকা নিয়েছে। কয়েকজন আমার কাছে নালিশ করেছিল।’ ইউপি সদস্য রাশেদুল ইসলাম বলেন, ‘অ’ভিযোগের বি’ষয়টি মি’থ্যা।

সামনে ভোট, আমার প্রতিপক্ষরা এসব ঘটনা সাজিয়ে আমার বি’রুদ্ধে অ’ভিযোগ দিয়েছে। যাতে আমি আগামীতে ভোট করতে না পারি।

কারো কাছ থেকে আমি টাকা নিয়েছি এটা প্রমাণ করতে পারলে তাদের জনপ্রতি আমি এক লাখ করে টাকা দিব এবং আমার যে শা’স্তি হয় তা মাথা পেতে নেব।’

কালীগঞ্জ উপজে’লা নির্বাহী কর্মকর্তা সুবর্না রানী সাহা বলেন, এ ঘটনায় একটি অ’ভিযোগ পেয়েছি। আজ অফিসে বসতে পারেনি।

অফিসে এসে ত’দন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ করা হবে। এরপর ত’দন্তের ফলাফল এলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here