মানুষ যত আধুনিক হচ্ছে তত বেড়ে উঠছে ফ্ল্যাট বাড়ি, আর ছেঁটে ফেলা হচ্ছে উদ্ভিদকে। ফলত পরিবেশ দূষণের মাত্রা দিনকে দিন বেড়েই চলেছে।

এই পরিবেশ দূষণের একটি কারণ যেমন প্রয়োজনের অ’তিরিক্ত গাছ কা’টা, তেমনি অ’পর একটি কারণ হলো যানবাহন।

যানবাহন চলার ক্ষেত্রে আবশ্যিক জ্বালানি তেলের ব্যবহার পরিবেশের দূষণ কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেয়। পরিবেশ দূষণ কমাতে তাই পরিবেশ বান্ধব ব্যাটারি চালিত যানবাহন ও ইলেকট্রিক গাড়ির চাহিদা তুঙ্গে।

আর যুগের চাহিদাকে মাথায় রেখে Tesla কম পয়সার পুষ্টিকর ইলেকট্রিক গাড়ি তৈরি করেছে। তবে মাহিন্দ্রা গ্রুপের চেয়ারম্যান আনন্দ মাহিন্দ্রা সম্প্রতি অন্য ছবি দেখালেন।

“আমা’র মনে হয় না এই গাড়ির যা কম খরচ, সেই খরচায় কোন গাড়ি বের করতে পারবে Tesala বা Elon musk।” ভিডিওটি মুহূর্তের মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে।

আসলে ভিডিওটি একটি গরুর গাড়ির। তবে এই গরুর গাড়ি সেই গরুর গাড়ি নয়। এই গরুর গাড়ি একেবারে অত্যাধুনিক বলাই যেতে পারে।

পঞ্চাশ সেকেন্ডের এই ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে দুটো ষাড়, পিছনে হাফ ট্যাক্সির মত একটি খোল টানছে।
যদিও ইলেকট্রিক গাড়ি আর গরুর গাড়ির মধ্যে আকাশ-পাতাল তফাৎ।

আর এই ভিডিওটি নিছকই রঙ্গ রসিকতা করে আনন্দ মাহিন্দ্রা সোশ্যাল মিডিয়ায় টুইট করেছেন। তবুও এই ভিডিওটি মুহূর্তের মধ্যেই নেটিজেনদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

অনেকেই এই ভিডিওটিতে মজার মজার কমেন্ট করেছেন। অনেকে লিখেছেন, “এই গাড়ি থেকে আবার শক্তি ও জ্বালানি ও উৎপন্ন হতে পারে যা আমা’দের অতি পরিচিত প্রাচীন বায়োগ্যাস।”

উল্লেখ্য বায়ু দূষণ কমাতে Tesla-ই নয় অন্যান্য সংস্থাও ইলেকট্রিক গাড়ি আনার চেষ্টা করছে। তবে Tesla যে ধরনের গাড়ি বানিয়েছে তা অন্যান্য যে কোন জ্বালানি গাড়ির চাইতেই উন্নত।
মুসলমানদের সুশৃঙ্খল জীবন দেখে মুসলিম হই

যুক্তরাষ্ট্রের ছোট্ট শহর নিউ হ্যাম্পশায়ারে আমার জন্ম ও বেড়ে ওঠা। আমার পরিবার ছিল খুবই দরিদ্র। মা আমাদের খাওয়ার সময় চার্চে পাঠিয়ে দিতেন।

কেননা চার্চ দরিদ্র মানুষকে খাবার দিত। এভাবে চার্চ আমার জীবনের অংশ হয়ে ওঠে। মা-বাবার অধীনে একটি শহরে বসবাস, দারিদ্র্য, একঘেয়ে কৈশোর জীবন আমার দৃষ্টি ছোট করে ফেলেছিল।

ফলে মাত্র ১৫ বছর বয়সে আমি গর্ভবতী হই এবং ১৯ বছর বয়সে দুই সন্তানের মা। মেয়েরা ছিল আমার জন্য আশীর্বাদ।

আমি মন্দ পথের পথিক ছিলাম। তাদের জন্য আমি সুপথে ফিরে এলাম এবং তাদের জন্য ভালো কিছু করার চেষ্টা করলাম।

আমি চাচ্ছিলাম, আমি যেভাবে বড় হয়েছি আমার মেয়ে তার চেয়ে ভালো জীবন লাভ করুক। ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার পর আমি কনজারভেটিভ রাজনীতির সঙ্গে পুরোপুরি জড়িয়ে পড়ি।

দীর্ঘ সময় আমি ফক্স নিউজ দেখে এবং রেডিওর আলোচনা শুনে কাটিয়েছি। কেউ আমার সামনে ইসলামের পক্ষে কথা বললে,

আমি তার সঙ্গে এমনভাবে ঝগড়ায় লিপ্ত হতাম যেন আমি তার চেয়ে অনেক বেশি জানি।এরপর সময় খুব দ্রুত চলে গেল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here