ছাত্রলীগ কখনোই টেন্ডারবাজি চাঁদাবাজি করে না বলে মন্তব্য করেছেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয়।

তিনি বলেন, দিনের পর দিন ছাত্রদের দিয়ে সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে বিএনপির আমলে। গঠনতন্ত্র ছাড়া বিএনপি’র ছাত্রসংগঠন ছাত্রদল রাজনীতি করে।

করোনা মহামারির প্রেক্ষাপটে সংগঠনটির এবারের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত হয়েছে ভার্চুয়াল পরিসরে।
রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

যেখানে ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগ প্রধান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।অনুষ্ঠানে নেতা-কর্মীদের নিয়ে ভার্চুয়াল মাধ্যমেই সংগঠনটির জন্মদিনের কেক কাটা হয়।

‘উন্নয়নের মহাসড়কে যারা বাধা দিতে চায় তাদের উদ্দেশ্য সফল হবে না। ৫০ লাখ নেতা-কর্মীর পরিবার ছাত্রলীগ সব সময়ই স্বাধীনতার পক্ষের সঙ্গী হয়ে থাকবে।

পাকিস্তানের প্রেতাত্মারা ডিজিটাল বাংলাদেশের সুযোগ নিয়ে গুজব ছড়িয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করতে চায় উল্লেখ করে ছাত্রলীগ নেতারা বলেন,

‘তাদের এই আশা কোনোদিন পূরণ হবে না। সাম্প্রদায়িক রাজনীতি যারা ছড়াতে চায়, তাদের দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে।’

অনুষ্ঠানে সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, ‘দেশের একটি অপশক্তির কাছে সবচেয়ে বড় বাধা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

করোনায় যখন সবাই ঘরবন্দি তখন কিন্তু একমাত্র ছাত্রলীগই মাঠে ছিল।’তিনি জানান, ‌বাংলাদেশ ছাত্রলীগ যেভাবে অতীতে জাতির জন্য কাজ করেছে,

সেভাবে আগামীতেও এগিয়ে যাবে। কারণ, ‘বিনাস্বার্থে রাজনীতি করা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের নেত্রীর ভালোবাসা ছাড়া আর পাওয়ার কিছু নেই।’

যৌন হেনস্তার জেরে বেধড়ক পিটুনি খেলেন বিজেপি নেতা

যৌ’ন হে’নস্তার অ’ভিযোগ তুলে সাবেক বিজেপি বিধায়ক মায়াশংকর পাঠককে বে’ধড়ক পি’টিয়েছেন এক ছাত্রীর পরিবারের সদস্যরা।

ওই ছাত্রী যে কলেজে পড়াশোনা করেন বিজেপির সাবেক এই বিধায়ক সেই কলেজের চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন।

ভারতের উত্তরপ্রদেশের বারাণসী জে’লার বাগাতুয়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে। ভারতীয় গণমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিনের খবরে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাবেক বিজেপি বিধায়ক মায়াশংকর পাঠকের বালুয়া পাহাদিয়া গ্রামে একটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ রয়েছে।

কয়েকদিন আগে ওই কলেজের এক ছাত্রীকে তিনি যৌ’ন হে’নস্তা করেন বলে অ’ভিযোগ ওঠে। এর জেরে মেয়েটির পরিবারের সদস্য ও

কয়েকজন প্রতিবেশী এসে ওই সাবেক বিধায়ককে বে’ধড়ক মা’রধর করেন।পরে এই ঘটনার ভিডিও প্রকাশ হলে এলাকায় শোরগোল পড়ে যায়।

সেই ভিডিওতে দেখা যায়, একটি চেয়ার বসে কান ধরে রয়েছেন মায়াশংকর। ভিডিওর জেরে ত’দন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে,

মেয়েটির যৌ’ন হে’নস্তার বি’ষয়ে এখনো স্থানীয় থানায় কোনো অ’ভিযোগ দা’য়ের করা হয়নি। পাশাপাশি মা’রধরের ঘটনায় সাবেক এই বিজেপি বিধায়কও পুলিশের দ্বারস্থ হননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here