আজকাল সকল মে’য়ে এবং ছেলেরাই যৌ-ন মি’লন করে। বর্তমান দিনে এটা খুবই কমন একটা ব্যাপার। কিন্তু কেউ কখনও ভেবে দেখেনা তার বিপরিত দিকের মানুষটি সমান ভাবে ইচ্ছুক কিনা।

বেশিভাগ ক্ষেত্রে ছেলেরা হঠাত করে মি’লনে লি’প্ত হয়ে যায়, কিন্তু দেখা যায় মে’য়েটির সে সময় সমানভাবে কোন আ’গ্রহ বা ই’চ্ছা কোনটাই নেই।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- না’রী ও-পুরু’ষের সকল প্রকার- জটিল ও গো’পন রো’গের চিকিৎসা করা হয়।

দেশে ও বিদেশে ও’ষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

ঠিক ঠাক ভাবে স্পর্শ করলে যেকোন মে’য়েকেই আপনি কামুকি করে তুলতে পারবেন। প্রথম স্পর্শ আপনার মন থেকে ভ’য়টা দূর করবে।

ভ’য় থাকলে কোন মে’য়েকে উ’ত্তেজিত করা আপনার পক্ষে সম্ভব হবে না। পিঠের ও’পর দিয়ে ব্রা টিকে স্পর্শ করা একটি দারুন আইডিয়া। একবার ধরুন একবার ছাড়ুন।

আপনি যদি চান আসতে আসতে মে’য়েটির পিঠের পিছনে স্পর্শও করতে পারেন বা আসতে আসতে তার পিঠে নিজের দীর্ঘশ্বাসটাও ছারতে পারেন।

এরাম সময় যদি একটু ফ্লারট করেন তাহলে ব্যাপারটা পুড়ো জমে খির। কিন্তু একবার অবশ্যই দেখবেন যে আপনার পার্টনারের রিয়েক্সন কি ?

যদি দেখেন আপনার পার্টনারের রিয়াক্সন পসেটিভ, তাহলে বুঝে নেবেন সেও আপনার কাছ থেকে আদর পেতে চাইছে।

এরপর আপনি এগানোর জন্য রেডি হন। লক্ষ্য করুন সে এগুলোর প্রেক্ষিতে কেমন আচরণ করছে। যদি অন্যরকম হাসি বা একটু ইতস্তত বোধ থাকে তার মধ্যে তো ধরে নেবেন আপনি ঠিক পথেই আছেন।

আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেন। কিন্তু যদি এমন হয় যে আপনি ধরতে গেলে সে দূরে সরে যাচ্ছে, কথা ঘোরাচ্ছে,

তবে সেই নরীকে উ’ত্তেজিত করতে এভাবে চেষ্টা করবেন না। মাঝে মধ্যে তার বুকের দিকে তাকিয়ে থাকুন। তাকে বুঝতে দিয়েই।

আবার হাত টাও বুকের কাছে নিন। লজ্জা বা ভ’য় পাবেন না। এগুলোতে উ’ত্তেজনা হানি হবে।একটা কথা সবসময় মাথায় রাখবেন,

পৃথিবীতে সবচেয়ে সহজে এবং সুন্দরভাবে মেয়েদের সে-ক্স ( মেয়েদের উ’ত্তেজিত ) তোলা যায় স্পর্শের মাধ্যমে।

এটিতেই সবচেয়ে সহজে সফল হন বেশিরভাগ মানুষ। কারন স্পর্শেই একমাত্র উ’ত্তেজিত করা সম্ভব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here