চট্টগ্রামের বোয়ালখালীর স্থানীয় সাংসদ মোছলেম উদ্দীন আহমদ উপজেলা কৃষি অধিদফতর আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে রোববার বেলা ১২টার দিকে নিজ উপজেলায় যান।

কিন্তু এমপি যাবেন বলে সকাল ১০টা থেকেই বোয়ালখালীর কালুরঘাট সেতুর একপাশ দিয়ে গাড়ি পারাপার বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এরই মধ্যে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কালুরঘাট সেতু এলাকায় আসে গরম পানিতে ঝলসে যাওয়া ছয় বছরের দগ্ধ এক শিশু ও তার স্বজনরা।

কিন্তু যান আটকে দেওয়ায় তারা পার হতে পারেননি।এরইমধ্যে তাদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠে সেতু এলাকার আশপাশ।

জানা গেছে, উপজেলার পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড পূর্ব গোমদন্ডী মীরপাড়ার এনামুল হকের ছয় বছরের শিশু কন্যা তানজিনা হক গরম পানির পাতিলে পড়লে সারা শরীর ঝলসে যায়।

সকাল ১০টার দিকে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হলে আশংকাজনক অবস্থায় কর্তব্যরত চিকিৎসক চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

কিন্তু সেতু এলাকায় আসা মাত্রই আটকে যায় সিএনজি। পরে, ওই শিশুকে নগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় সাংসদ মোছলেম উদ্দীন আহমদ উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর আয়োজিত বোরো আবাদ বৃদ্ধির লক্ষ্যে জনপ্রতিনিধি,

স্কিম ম্যানেজার ও কৃষকদের অংশগ্রহণে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন।এ বিষয়ে জানতে চাইলে টোল অফিসে কর্মরত ম্যানেজার

নিজাম উদ্দীন কিছু জানেন না বলে জানান। বলেন, সকালের শিফটে তিনি দায়িত্বে ছিলেন না। তাই এ বিষয়ে তিনি কথা বলবেন না।

তবে এমপি পার হওয়ার ঘটনার কথা তিনি জানতেন বলে জানান।ঘটনাটি দুঃখজনক জানিয়ে বোয়ালখালী থানার ওসি মো. আবদুল করিম বলেন,

এমপি’র প্রটোকলের দায়িত্বে ছিলেন সেকেন্ড অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আল আমান। তিনি বিস্তারিত বলতে পারবেন।

তবে, বোয়ালখালী থানার সেকেন্ড অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আল আমান সেতু বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘এমপি স্যারের সঙ্গে থাকা লোকজনই সেতু বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here