সাভারের বিরুলিয়ায় হাত বাঁ’ধা অবস্থায় ফজলুল হক (৫০) নামের এক সাবেক সে’না সদস্যের ম’রদেহ উ’দ্ধার করেছে সাভার থানা পুলিশ।

রোববার (২৪ জানুয়ারি) বিরুলিয়ার কমলাপুর এলাকায় একটি ব্রিজের নিচ থেকে ম’রদেহটি উ’দ্ধার করা হয়।

নি’হত ফজলুল হক মানিকগঞ্জ জে’লার শিবালয় থানার রাহতপুর গ্রামের মৃ’ত আমিন উদ্দিন মোল্লার ছেলে।

তিনি পপুলার ইনসুরেন্সের মালিকের দেহরক্ষী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এছাড়া গত চার বছর আগে সে’না সদস্যের পদ থেকে অবসরে যান।

পরে পুলিশ ম’রদেহ উ’দ্ধার করে এবং পরিচয় শনাক্ত করে। এ বি’ষয়ে সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-ত’দন্ত) সাইফুল ইসলাম বলেন,

নি’হতের ম’রদেহ উ’দ্ধার করে ময়না ত’দন্তের জন্য ঢাকার সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আমি পিরামিডের ঐতিহ্য তুলে ধরতে চেয়েছি, অথচ আমাকে গ্রেপ্তার করা হলো : সালমা

বিশ্বে অনেক প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন রয়েছে যেগুলো দর্শনীয় স্থান হিসেবে মানুষ ভ্রমণ করতে যায় শুধু তাই নয় এসব দূর-দূরান্তে থাকা প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন এর সামনে গিয়ে

নিজেরাও ক্যামেরাবন্দি হতে ভুলে যান না ভ্রমণপিপাসুরা তেমনি মিশরের পিরামিডের সামনে কিওপেটরা সাজে ছবি তুলতে গিয়ে খ্যাতনামা মডেল

সালমা গ্রেপ্তার হয়েছেন পুলিশের কাছে। এই ঘটনার পর তার ভক্তদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ছড়িয়ে পড়ে এবং রীতিমত অবাক বনে গেছে তার ভক্তরা

মিসরে পিরামিডের সামনে ক্লিওপেট্রার সাজে ছবি তোলায় খ্যাতনামা মডেল সালমা আল-শিমিকে গ্রেপ্তার করেছে মিসরীয় পুলিশ।

সেই সঙ্গে ফটোগ্রাফারকেও গ্রেপ্তার করা হয়। অবশ্য পরে তাঁরা জরিমানা দিয়ে ছাড়া পান। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো গুরুত্বসহকারে এ খবর প্রচার করছে।

নভেম্বরের শেষেই মিসরের পিরামিডের সামনে এই ছবিগুলো তুলেছিলেন ওই ফটোগ্রাফার।প্রাচীন মিসরীয়র বেশেই ক্যামেরার সামনে পোজ দেন সালমা।

সেই ছবি আপলোড করেন নিজের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে। অল্প সময়েই দাবানলের মতো তা সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে।

মিশরীয় প্রশাসনেরও নজরে পড়ে। এর পরই ফ্যাশন ফটোগ্রাফারকে পিরামিডের সম্মানহানির জন্য গ্রেপ্তার করা হয়।

এদিন কায়রো শহরের বাইরে এক পিরামিডের সামনে স্বল্প পোশাকে ফটোশুট করছিলেন সালমা-আল-শাইমি । আর এই ছবি প্রকাশ্যে আসে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে,

তার পরেই নেটিজেনদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে। ঘটনা হাতের বাইরে চলে যাওয়ার আগেই ওই মডেল এবং ফটোগ্রাফারকে গ্রেপ্তার করে মিসরীয় পুলিশ।

তাকে গ্রেপ্তারের পর সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। ওই মডেলের ভক্তের সংখ্যা নেহাত কম নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here