বেসরকারি প্রাইম ব্যাংকের সাভারের গণকবাড়ি শাখায় টাকা জমাতেন সাবেক পোশাক শ্রমিক মাহমুদা নাছরিন।

তিন লাখ টাকা সঞ্চয় থেকে দুই লাখ তুলে নিয়েছেন ‘আকাশ’ নামে একজন। ব্যাংকের বি’রুদ্ধে উঠেছে গাফিলতির অ’ভিযোগ।

অল্প অল্প করে সঞ্চয়ে বড় স্বপ্ন দেখেছিলেন সাবেক পোশাক শ্রমিক মাহমুদা নাছরিন। বহু কষ্টের টাকায় ভবিষ্যতে কিছুটা স্বাচ্ছন্দ্যের আশা ছিল।

কিন্তু ২৫ বছর ধরে ব্যাংকে জমানো টাকা একজন তুলে নিয়ে গেছেন।ঘটনাটি ঘটেছে বেসরকারি প্রাইম ব্যাংকের সাভারের গণকবাড়ি শাখায়।

সবজি বিক্রি করে পাওয়া টাকা, আর শখ আহ্লাদের জন্য স্বামীর দেয়া টাকা খরচ না করে রেখেছিলেন ব্যাংকটিতে।

গত মাসে চেকবই খুঁজে না পেয়ে ব্যাংকে যান মাহমুদা। গিয়ে দেখেন তার হিসাব থেকে দুই লাখ টাকা নাই হয়ে গেছে।

জানতে পারেন, ‘আকাশ’ নামে এক ব্যক্তি তার টাকা তুলে নিয়ে গেছেন। তবে তিনি তাকে চেনেন না, কোনো চেকও দেননি।

এই ঘটনায় মাহমুদা আশুলিয়া থা’নায় চেক জালিয়াতির অ’ভিযোগ এনেছেন। মাহমুদা বলছেন, গ্রাহক নিজে উপস্থিত না থাকলে

৩০ হাজার টাকা তুললেও ব্যাংক থেকে ফোন করা হয়। আর দুই লাখ টাকা তুললে যে টাকা আনতে গিয়েছেন, তার জাতীয় পরিচয়পত্র জমা দিতে হয়। কিন্তু প্রাইম ব্যাংক তার কিছুই করেনি।

তিনি জানান, ব্যাংকের হিসাবরক্ষক কর্মক’র্তা আনোয়ার হোসেনের কাছে এসব নিয়ে জবাব জানতে চেয়েছিলেন তিনি।

কিন্তু তাকে কিছু না বলে ‘কটূকথা’ বলা হয়েছে। টাকা হারানোর শো’কের পর অপমানিত হয়ে বাড়ি ফিরতে হয়েছে।

২৮ অক্টোবর আশুলিয়া থা’নায় করা লিখিত অ’ভিযোগে বলা হয়, গত ১১ অক্টোবর বাসায় চেক বই খুঁজে না পেয়ে দ্রুত ব্যাংকে যান মাহমুদা।

সেখানে গিয়ে সব জানতে পারেন তিনি। মাহমুদা নাছরিন ১০ বছর চাকরি করেছেন পোশাক কারখানায়। স্বামী পেশায় গাড়ি চালক।

প্রায় ২৫ বছরের সংসার। দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে যখন যেমন পেরেছেন, টাকা জমিয়েছেন মাহমুদা।নিউজবাংলাকে এই নারী বলেন,

‘সংসারে অভাবের কারণে ১৪ বছর বয়সেই মা-বাপ বিয়া দিয়া ফালায়। ১৯৯৬ সালে দেশের বাড়ি টাঙ্গাইল থাইকা ঢাকায় চইলা আসি।

স্বা’মী রেজাউল করিমও আমা’র লগেই আসে। আমি চাকরি নেই ইপিজেডের গার্মেন্টসে। আর স্বামী ছোট্ট একটা কসমেটিকসের দোকান দ্যায়। তখন থাইকা আমি অনেক কষ্ট করছি।

‘শ্রীপুর খান কলোনি থাইক্কা ৪০-৪৫ মিনিটের পথ হাইট্যা গার্মেন্টসে গেছি। গাড়ি ভাড়ার ৫-৬ টাকা বাঁ’চাইছি।

অফিসে দুপুরের টিফিন না খাইয়া সেই ট্যাকাও রাখছি। অফিসের ইনক্রিমেন্ট আর ওভারটাইমের কিছু টাকাও জমাইছি। স্বামী শখ কইরা কিছু কিনতে দিলে হেইডাও কিনি নাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here