টাঙ্গাইলের সখীপুরে এক গৃহবধূকে (৩২) গণধ’র্ষণের ঘ’টনা ঘটেছে। ধ’র্ষণে সহযোগিতা করায় ওই গৃহবধূর মা ও ধ’র্ষক সাবেক দুই স্বা’মীকে গ্রে’ফতার করেছে পু’লিশ।

মঙ্গলবার (১৯ মে) রাতে ওই গৃহবধূ বা’দী হয়ে অ’পহরণ ও ধ’র্ষণের অভিযোগে তার মাসহ ছয়জনকে আ’সামি করে সখীপুর থানায় মা’মলা করলে পু’লিশ রাতেই তিন জনকে গ্রে’ফতার করে।

বুধবার (২০ মে) সকালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য গৃহবধূকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গ্রে’ফতার

আবদুল কাদেরের (৫৫) বাড়ি পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডে এবং আবদুর রহমানের (৩৯) বাড়ি উপজে’লার কচুয়া গ্রামে।

পরে তার বর্তমান স্বা’মীকে খরব দিলে তিনি স্ত্রী’কে উ’দ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যান।মা’মলার ত’দন্ত কর্মকর্তা সখীপুর থানার ওসি (ত’দন্ত) এএইচএম লুৎফুল কবির উদয় বলেন,

গৃহবধূর দেয়া ত’থ্যের ভিত্তিতে ধ’র্ষণে সহযোগিতা করায় মা ও সাবেক দুই স্বা’মীকে গ্রে’ফতার করা হয়েছে। অন্য আ’সামিদের গ্রে’ফতারের চেষ্টা চলছে।

যেসব কারণে পরকীয়ায় আসক্ত হচ্ছে প্রবাসীর জীবনসঙ্গী

আগের দিনের রাজা বাদশাহর যুগ থেকে কল্প কাহিনীর মুখরোচক গল্প কিংবা বর্তমান যুগে পর’কী’য়া প্রে’ম শব্দটির সাথে কম বেশী সকলেই পরিচিত।

ঐতিহাসিক রাজতন্ত্রের আমলে রাজা কিংবা রানী পর’কী’য়া প্রে’মের শিকার হয়েছেন। এই ক্ষেত্রে রানীরা ছিলেন এগিয়ে।

হাল আমলেও ঘরের স্ত্রী’দের সংখ্যাই বেশী বলে প্রতিয়মান। পুরুষগণ যে খুব একটা পিছিয়ে তা কিন্তু নয়। নারীদের পর’কী’য়া প্রে’মে জ’ড়িয়ে যাবার বিভিন্ন

কারন থাকলেও পুরষদের বেলায় হিন্দি বা উর্দু ভাষার একটি প্রবাদ অনুপ্রেনার মূল বিষয়। প্রবাদ টি এ রকম “ঘরকা মুরগি ডাল বরাবর”।

তবে দীর্ঘ প্রবাস জীবন চাকুরীর সুবাদে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাওয়ার সুযোগে এবং বিভিন্ন এলাকার মানুষের সাথে মেশার সুযোগে জানা গেছে নানা স’ত্য ঘ’টনা।

এ ছাড়া পত্রিকা পড়ার বয়স থেকে নানা রকম খু’ন রাহা’জানির নেপথ্যে ছিলো পর’কী’য়া প্রে’ম।পর’কিয়া প্রে’ম কি এবং কেন? :

বিবাহিত স্ত্রী’ বা পুরুষ বিপরীত লি’ঙ্গের প্রতি প্রে’ম বন্ধনে আবদ্ধ হলে আম’দের দেশে আভিধানিক ভাষায় পর’কী’য়া বলা হয়।

পাঠকের কাছে নানা কারন থাকতে পারে, আমা’র মতের সাথে একটি কারণের যদি মিল খুঁজে পাওয়া যায় তাহলে আজকের লেখার সার্থকতা।

দীর্ঘ সময় স্বামী থেকে দূরে থাকার কারনে স্ত্রী’রা পর’কী’য়া জ’ড়াতে পারেন। স্বামী থেকে দুরে থাকার কারনে চিঠির যুগে চিঠি

আর ডিজিটাল যুগে মোবাইল ফোনের অ’পেক্ষায় সঙ্গিনী সতী স্ত্রী’রা ভুগেন একাকী’ত্বে। সংসারের টানা পড়েন জ্বালা যন্ত্র’ণার কথা কাউকে জানাতে পারেন না।

সে সুযোগে যদি কোন বন্ধু আবির্ভুত হয় তার জী’বনে স’ম্পর্কে র’ক্তের ভাই বোন ছাড়া যে কেউ হয়ে উঠেন কাছের মানুষ। সে থেকে সূত্র পাত হয় পর’কী’য়ার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here