হ্যাঁ , অনুমান অনেক ক্ষেত্রে কাজে লাগে , কিন্তু সবক্ষেত্রে অনুমান সঠিক হয় না । উদাহরণ স্বরূপ: মেয়েরা অনুমান করে যে তাকে যত সুন্দর দেখাবে ,

ছেলেরা তাকে তত পছন্দ করবে। অনুমানটি অনেকাংশে সত্যি, কিন্তু সৌন্দর্য ছাড়াও , আরও অনেক কিছু আছে , যা ছেলেরা পছন্দ করে।

আর, একজন ছেলেই ভালোভাবে জানে – একজন মেয়ের কোন কোন বৈশিষ্ট্যগুলো তার ভাল লাগে ।
এখানে কিছু বৈশিষ্ট্যের কথা বলব যা সাধারণত ছেলেরা পছন্দ করে, মেয়েদের কাজে লাগতে পারে।

১.সরলতা : ছেলেরা সাধারণত সহজ –সরল মেয়েকে পছন্দ করে । যদিও ছেলেরা খুব ভাবুক/ফ্যাশনেবল মেয়েদের সাথে মেশে এবং

তার স্বা’মী বা প্রে’মিক অনেক স্মার্ট এবং সুপুরু’ষ হবে তেমনি এটাও ছেলেদের একটি সহজাত চাওয়া এবং স্বভাব ।

২. নিরবতা এবং কোমলতা : ছেলেরা সাধারণত সেইসব মেয়েকে অনেক বেশি পছন্দ করে যারা বেশিরভাগ সময় নিরব ও চুপচা’প থাকে,

অনেক আস্তে আস্তে কথা বলে, অনেক নরম স্বভাবের ।যেসব মেয়ে অনেক চিল্লা-পাল্লা করে, অনেক বেশি লাফ-ঝাপ করে বেড়ায়, কাজ কর্মে কোন পরিপাটি নেই, তাদেরকে ছেলেরা পছন্দ করে না।

উদাহরণ স্বরূপ: একটা ছেলে ক্লাবে গিয়ে শৃঙ্খলহীন মেয়েদের সাথে নাচানাচি করলেও , তাকে সে কিন্তু বিয়ে করবে না বা তার বউকে ক্লাবে ওরকমভাবে নাচতে দিবে না।

শুধু ছেলেরাই নয়, নরম স্বভাবের মেয়েদেরকে সবাই পছন্দ করে।৩.ফ্রেন্ডলীনেস ও হাসিখুশি ভাব: নরম স্বভাবের মানে এই নয় যে কারো সাথেই কথা বলে না।

নরম স্বভাবের মানে হলো কারো সাথে গায়ে পরে অপ্রয়োজনীয় কথা বলে না, কিন্তু কেউ যদি নিজে থেকে এসে কিছু জিজ্ঞেস করে তবে অবশ্যই বলে। অর্থাৎ মিশুক কিন্তু গায়ে পড়া নয়।

এটা ছেলেদের একটি স্বভাব যে -যেসব মেয়েরা তাদের সাথে গায়ে পরে কথা বলতে আসে, তাদেরকে তার তেমন গুরুত্ব দেয় না।

আবার যে সকল মেয়েকে নিজে থেকে জিজ্ঞস করার পরও তারা উত্তর দেয় না , ছেলেরা তাদেরকে অহংকারী ভাবে ।

তাই, বোনেরা , এক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে।৪. শিক্ষা : একটা সময় ছিল যখন মেয়েদের শিক্ষার ব্যাপারটি ছেলেদের পছন্দের ক্ষেত্রে কোন ভূমিকা রাখত না।

কিন্তু , যুগের পরিবর্তনে , শিক্ষা ছেলেদের পছন্দের ক্ষেত্রে অন্যতম নিয়ামক। যেমন: গার্মেন্টস এর একটা মেয়ে হাজার সুন্দরী হলেও,

তার থেকে কম সুন্দরী একজন শিক্ষিত মেয়ের চা’হিদা বেশি, অন্তত শিক্ষিত ছেলেদের কাছে ।৫. স্মার্টনেস : ছেলেরা স্মার্ট মেয়েদেরকে পছন্দ করে।

স্মার্ট মানে যে ভীষণ ভাব নিয়ে চলতে হবে তা নয়, স্মার্ট মানে কাজে-কর্মে স্মার্ট। অর্থাৎ তাকে যে কাজটি করতে দেয়া হয়, সে কাজটিই সে বুদ্ধি দিয়ে সুন্দর করে গুছিয়ে করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here