বিয়ের সময় স্ত্রী’কে দেনমোহর প্রদান করা স্বা’মীর ও’পর ফরজ। মোহর পাওয়া স্ত্রীর অধিকার। না’রীকে এ অধিকার দিয়েছেন স্বয়ং আল্লাহ।

তাই অন্যসব অধিকারের মতো স্বা’মীর কাছে দেনমোহর দাবি করা স্ত্রীর জন্য কোনো দূষণীয় নয়। অনেকেই মনে করেন, দেনমোহরের টাকা স্ত্রী’কে দিতে হয় শুধু বিয়ের বিচ্ছেদ ঘটলে। এটা অজ্ঞতা ও চ’রম ভু’ল ধারণা।

এখন আসি মূ’ল কথায়, নব-বিবা’হিত স্বা’মীর কাছে টাকা-সোনা-গয়না কিংবা ব্যাংক ব্যালেন্স কোনোটিই না চেয়ে দেনমোহর হিসেবে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ নিয়মিত যেন আদায় করেন, তার প্রতিশ্রুতি চাইলেন তার স্ত্রী। এমনই এক অভিনব দেনমোহরের বিনিময়ে বিয়ে সম্পন্ন হলো পাকিস্তানে।

রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর যুগেও এমন বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে; যেখানে একটি সূরা মুখস্ত করাকে বিয়ের দেনমোহর হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছিল কন্যার পক্ষ থেকে। সেই হিসেবে এই বিয়ে অভিনব না হলেও অনেকের জন্য তা অনুকরণীয়। বিশেষ করে যখন কয়েক লাখ টাকার নগদ ঘরভর্তি আসবাবপত্র, গাড়ি ছাড়া বর্তমান যুগে বিয়ে হয় না।

অন্যদিকে, কনেপক্ষ থেকেও বিশাল অংকের দেনমোহর দাবি করা হয় যা পরিশোধ করা পাত্রের পক্ষে অসম্ভব হয়ে ওঠে। এমন পরিস্থিতিতে ইয়াসরা-হাদির এমন অভিনব বিয়ে প্রশংসাযোগ্য। অতি অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বিয়ের অনুষ্ঠানটি সম্পন্ন করা হয়।

ইয়াসরা বলেন, নামাজ শুধু আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য। নামাজ আমাদের পাপ কাজ থেকে বাঁচায়। এ জন্য আমি আমার স্বা’মীর কাছ থেকে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের প্রতিশ্রুতি চেয়েছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here