বিশ্ব মিডিয়ায় খবর ছড়িয়ে পড়ে যে, পাকিস্তানি গ্রেট শহীদ আফ্রিদির বড় মে’য়ে আকসা আফ্রিদিকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন দেশটির তরুণ পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদি।

একজন পাকিস্তানি সাংবাদিক দুই পরিবারের সম্মতিতে টুইট করে বি’ষয়টি প্রকাশ করেন। দিনভর গুঞ্জনের পর রাতে মুখ খুলেন শহীদ আফ্রিদি।

সাবেক পাকিস্তান অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি টুইটারে লিখেন, আমার মে’য়ের জন্য শাহীনের পরিবার প্রস্তাব দিয়েছে।

দুই পরিবারই বি’ষয়টি নিয়ে আলোচনা করছে। আসলে দাম্পত্য সম্প’র্ক তো স্বর্গ থেকে আসে।

আশির্বাদের জন্য ধ’ন্যবাদ লালা। আল্লাহ সবার জন্য সবকিছু সহজ করে দিক। আপনি (শহীদ আফ্রিদি) গোটা পাকিস্তানের গর্ব।

মাত্র তিন সপ্তাহে ১১ কেজি ওজন কমানোর র’হস্য জানালেন পিয়া জান্নাতুল
কিছুদিন আগেই স’ন্তানের মা হয়েছেন, তারও আগে বেবি বাম্পের ফটোসেশন করে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছিলেন।
কিন্ত মা হবার তিন সপ্তাহের মা’থায় মডেল-উপস্থাপিকা এবং অ’ভিনেত্রী পিয়া জান্নাতুলকে দেখে সবাই অ’বাক!

স’ন্তান জ’ন্ম’দানের পর একজন মায়ের শ’রীরে যে ধকল কিংবা ক্লান্তির রেশ থাকে, অথবা শ’রীর ভা’রী হয়ে যাওয়ার একটা প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়- পিয়ার মধ্যে সেরকম কিছুই নেই! বরং মাত্র তিন সপ্তাহে ১১ কেজি ওজন কমিয়ে সবাইকে তাক লাগিয়েছেন তিনি।

সবার জানার আ’গ্রহ ছিল, কী’ভাবে এই অসাধ্য সাধ’ন করলেন পিয়া। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পিয়ার ভক্তরা তাকে এই প্রশ্ন অজস্রবার করেছেন।

তাই আলাদা জবাব না দিয়ে না’রী দিবস উপলক্ষে একেবারে ভিডিও আপলোড দিয়ে পিয়া জানিয়েছেন তার এই ওজন কমানোর র’হস্য।

না’রী দিবসে সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে পিয়া বলেন, ‘এত কম সময়ে ওজন কমানোর বি’ষয়টা অনেক কঠিন ছিল। আমি নিজেও ভেবেছিলাম মা হওয়ার কারণে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত যে ওজনটা বেড়েছে সেটা থাকবে।

পরে যখন জিমে যাবো সেটা ঠিক হবে। কিন্তু মা হওয়ার তিন সপ্তাহের মধ্যেই আমি ১১ কেজি ওজন কমিয়েছি।’

পিয়া বললেন- ‘পরে যখন জিমে যাবো সেটা ঠিক হবে। কিন্তু মা হওয়ার তিন সপ্তাহের মধ্যেই আমি ১১ কেজি ওজন কমিয়েছি।

এজন্য আমি নির্দিষ্ট ডায়েট চার্ট মেনে চলেছি। তার মানে এই নয় যে আমি একেবারেই খাওয়া দাওয়া বাদ দিয়েছিলাম। প্রসূতি মা হিসেবে আমা’র যতটুকু সুষম খাবার খাওয়া প্রয়োজন সেটুকু আমি গ্রহণ করেছি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here