অনেকেই মাথার চুল ধরে রাখতে আপ্রা’ণ চেষ্টা করে। তাদের দৃষ্টিতে মাথার চুল পড়ে গেলে ব’য়স স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি মনে হয়।

কিন্তু নতুন এক গবে’ষণায় বলা হচ্ছে, টাক মাথার পুরু’ষ না’রীদের কাছে বেশি আ’কর্ষণীয়। কেবল তাই নয়, না’রীদের কাছে টাক মাথার পুরু’ষ তুলনামূ’লক বেশি আত্মবিশ্বা’সী ও প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব।

গবে’ষণাটি করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ‘ইউনিভার্সিটি অব পেনসিলভেনিয়া’র পক্ষ থেকে।তাতে শিক্ষার্থীদের বেশ কয়েকজন পুরু’ষের ছবি দেখতে বলা হয়।

ছবিতে টাক মাথার বেশ কয়েকজন পুরু’ষও ছিলেন। ছবিগুলো দেখার পর তিনটি মানদ’ণ্ডে মূ’ল্যায়ন করা হয়েছে। এগুলো হলো ছবির পুরু’ষ চরিত্রগুলো কতটা আ’কর্ষণীয়,

এ ক্ষেত্রে চুল আছে, এমন পুরু’ষদের চেয়ে টাক মাথার পুরু’ষদের ব’য়স গড়ে চার বছর বেশি মনে হয়।

দাম্পত্যে শা’রীরিক সম্প’র্কই কি সব?

প্রেম কিভাবে জমে ওঠে? দু’জন মানুষের ভে’তরে ভালোলাগা-ভালোবাসার লেনদেনেই গাঢ় হয় প্রেম। দাম্পত্য জীবনে এই প্রেম ধরে রাখার একমাত্র উপায় কিন্তু কখনোই যৌ*aনতার সম্প’র্ক নয়।

বরং ছোট ছোট আরও অনেক বি’ষয় রয়েছে যা দাম্পত্য সম্প’র্কের সৌন্দর্য বাড়িয়ে তোলে শতগুণ। দৃঢ় করে বন্ধ’ন। একস’ঙ্গে বেড়াতে যাওয়া, পাশাপাশি বসে কফি খাওয়া কিংবা হাত ধরে থাকার মাধ্যমেও ভালো রাখা যায় দাম্পত্য জীবন। জেনে নিন-

হেড মাসাজ: মাসাজের কথা শুনে অবাক হচ্ছেন নিশ্চয়ই। কিন্তু সারা সপ্তাহের ক্লান্তি কা’টাতে মাসাজ আসলেই ম্যাজিকের মতো কাজ করে। প্রিয়জন যদি মাথায় মাসাজ করে দেন,

তা একদিকে যেমন খুবই আরাম’দায়ক, অন্যদিকে আপনাদের ঘনিষ্ঠতাকেও ভিন্ন মাত্রা দেয়। তাই সপ্তাহ শেষে প’রস্পরের জন্য বরাদ্দ রাখু’ন গরম তেলের হেড মাসাজ আর ভু’লে যান সারা সপ্তাহের ক্লান্তি।

রিমোটের ভাগ দিন: সব সময় নিজের পছন্দের শো দেখতে হবে- এমন নয়। প্রাধান্য দিন স’ঙ্গীর পছন্দকেও। তাই টিভি দেখার সময় রিমোট আঁকড়ে বসে থাকবেন না। তার পছন্দের শো দেখার সুযোগ দিন।

হাত ধরুন: এর মানে সারাক্ষণই তার হাত ধরে বসে থাকতে হবে, এমন নয়। তবে মাঝেমাঝেই সুযোগ বুঝে তার হাত ছুঁয়ে দিন। ঘনিষ্ঠতারর প্রথম ধাপই হলো হাত ধরা। কারণে অকারণে স’ঙ্গীর হাত ছুঁয়ে দেখু’ন আপনাদের রসায়ান আরও বেশি মজবুত হয়ে উঠবে।

নৈঃশব্দ: সব কোলাহল থেকে দূরে দু’জনে চুপচা’প পাশাপাশি বসে থাকুন। বই পড়ুন বা নৈঃশব্দ উপভোগ করুন। খোলা আকাশের নিচে বসতে পারলে তো কথাই নেই। তারা গুণে সময় পার হয়ে যাবে! মাঝেমাঝেই এমনটা করুন। দেখকে, সম্প’র্ক আরও বেশি সুন্দর হয়ে উঠছে।

চিঠি লিখু’ন: বর্তমানে ইন্টারনেটের গতিশীলতার যুগে চিঠি হা’রিয়ে গেছে বললেই চলে। কিন্তু চিঠির সেই আবেদন এখনও কমেনি।

তাই এসএমএস, এমএমএস এর বদলে তাকে চমকে দিন চিঠি লিখে। মনের যতো না বলা কথা তাকে একে একে চিঠির ভাষায় জানিয়ে দিন। তিনি রোমান্টিক হতে বা’ধ্য!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here