বগুড়ার ধুনট উপজে’লা ম’হিলা অওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও ধুনট উপজে’লা ভাইস চেয়ারম্যান পপি রানী সাহাকে দল থেকে সাময়িক ব’হিষ্কারাদেশ দিয়ে স্থায়ীভাবে ব’হিষ্কারারের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ পাঠানো হয়েছে ।

দলের জে’লা শাখার সভানেত্রী অধ্যক্ষ খাদিজা খাতুন ও সাধারন সম্পাদক নিগার সুলতানা ডরোথি স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই ত’থ্য জানানো হয়।

এদিকে এই ব’হিষ্কারাদেশ সম্প’র্কে এক ফেসবুক স্ট্যটাসে পপি রানী সাহা লিখেন দলের জন্য একটু বেশি বেশি কাজ করতে গিয়েছিলাম , দল তারই প্রতিদান দিল। তবে দলের একটি সুত্র জানায় ,

তরুন ম’হিলা লীগ নেত্রী পপি রানী সাহা সিনিয়রদের ইর্ষাপরায়নতার শি’কার হয়েছেন । মুলত আগামী সম্মেলনে যাতে দলের জন্য হু’মকি হয়ে উঠতে না পারেন সে কারনেই তাকে দল থেকে কৌশলে সরিয়ে দেওয়া হল বলে মনে করছেন অনেকেই ।

জ’ন্মস্থানের নাগরিকত্ব ছেড়ে পুরোদস্তুর বাংলাদেশি হয়ে ওঠার চেষ্টায় ৩১ বছর ব’য়সী ফুটবলার। ২০১১ সালে বাংলাদেশে এসে খেলা শুরু করেন কিংসলে।পরের বছর মন দেওয়া-নেওয়া করে বিয়ে করেন বাঙালি মে’য়ে লিজাকে। সেই ঘরে একটি মে’য়েও আছে। নামও বাবার নামের স’ঙ্গে মিলিয়ে রাখা—এলিটা সাফিরা।

বিয়ের পর থেকেই বাংলাদেশের নাগরিকত্ব নেওয়ার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন কিংসলে। ২০১৬ সালে আবেদন করেছিলেন তিনি। আর এই ফাঁকে বাংলাদেশের ভাষা-সংস্কৃতির স’ঙ্গে পরিচিত হচ্ছিলেন। এরইমধ্যে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের প্রথম দুই লাইন রপ্ত করে ফে’লেছেন। কিংসলে বলেছেন,

‘এই দেশে বিয়ে করার পর এখানেই ধাতস্থ হওয়ার চেষ্টা করছি। বাংলা ভাষা অল্প অল্প বলতে পারি।জাতীয় সংগীতের প্রথম দুই লাইন মুখস্থ করেছি (গেয়েও শোনালেন)। আসলে আমার মে’য়ে এলিটা সাফিরা আমাকে সবকিছু শেখাচ্ছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here